fbpx
কলকাতাহেডলাইন

‘সর্বভারতীয় জয়েন্টের প্রশ্নপত্রে গুজরাটি ঠাঁই পেলে বাংলা নয় কেন?’ ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও প্রশ্ন মুখ্যমন্ত্রীর

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: বাংলার মেধা বরাবরই দেশ তথা বিশ্ববন্দিত। কিন্তু নিজের দেশেই সর্বভারতীয় একাধিক ক্ষেত্রে ব্রাত্য হয়ে পড়ছে বাংলা ভাষা। তাই সোমবার নবান্ন সভাঘরে পশ্চিমবঙ্গের মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, মাদ্রাসা, হাই মাদ্রাসা পরীক্ষার কৃতীদের সংবর্ধনা দিতে গিয়ে ফের সর্বভারতীয় ডাক্তারি, ইঞ্জিনিয়ারিং পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে বাংলা ভাষা না রাখা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সওয়াল করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশ্ন করলেন, ‘সর্বভারতীয় জয়েন্টের প্রশ্নপত্রে গুজরাটি ঠাঁই পেলে বাংলা নয় কেন? এই নিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছি আমি।’
একই সঙ্গে কেন্দ্রের নয়া শিক্ষানীতি অনুযায়ী  বোর্ড পরীক্ষায় কোনও ব়্যাংক না থাকার নয়া পদ্ধতি নিয়েও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মেধাতালিকা না থাকলে ছাত্রছাত্রীদের নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা থাকবে না। এটাই তো ছাত্র-ছাত্রীদের গর্ব, জীবনের সম্পদ। আমার মনে হয়, যে যেভাবেই পাশ করুক, একটা মেধাতালিকা দরকার।”
এভাবে এদিন কৃতীদের উদ্দেশে একাধিক বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। নিজের লক্ষ্যকে অটুট রেখে ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যেতে বলেন। প্রয়জনে ছাত্র-ছাত্রীদের স্কলারশিপের জন্য এ আবেদন করতে পারেন,  সে কথা জানান তিনি।মনীষীদের নামে রাজ্যে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। নেতাজি মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি  দেশনায়কের প্রতি সম্মানার্থে নেতাজির বিখ্যাত স্লোগান ‘জয় হিন্দ’ নামে আরও একটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির কথা এদিন জানালেন মুখ্যমন্ত্রী।
এছাড়া বিআর আম্বেদকরের নামেও একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে তৈরির ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কোভিড পরিস্থিতির জন্য কারও যেন ভর্তিতে কোনও সমস্যা না হয় এবং আর্থিক সমস্যার জন্য কারও পড়াশোনা আটকে না যায়, তার জন্যও নবান্নের শীর্ষকর্তাদের সক্রিয় হতে বলেছেন তিনি। তিনি মনে করেন, পড়ুয়ারাই দেশের ভবিষ্যত আর বাংলার পড়়ুয়ারা মেধার দিকে থেকে সবচেয়ে এগিয়ে। তাই মেধা বিকাশের রাস্তা খোলা রাখতে হবে। তার জন্য সব সময় প্রস্তুত রাজ্য সরকার।

Related Articles

Back to top button
Close