fbpx
কলকাতাহেডলাইন

প্রশাসনিক বৈঠক থেকে স্টুডেন্ট হেলথ কার্ড নিয়ে সরব মুখ্যমন্ত্রী, সরকারি কাজে গাফিলতি বরদাস্ত করা হবে না

 

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ নেতাজি ইন্ডোরের প্রশাসনিক বৈঠক থেকেই ফের অফিসারদের কড়া বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি ফের মুখ্যমন্ত্রীর মুখে উঠে এল রাজ্যপাল প্রসঙ্গ। এদিনের বৈঠক থেকেই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন, কাজ নিয়ে কোনও অজুহাত চলবে না। ওপরতলার অফিসাররা নিচের অফিসারদের দিকে কাজ ঠেলে দিচ্ছে। এটা চরম অবহেলার প্রতিচ্ছবি। নিজের দফতরের নিজেকেই করতে হবে। পয়সা দিলাম আর মেলা করলাম, সেভাবে চলবে না। সরকারি কাজে গাফিলতি বরদাস্ত হবে না।

কোভিড প্রসঙ্গেও মুখ্যমন্ত্রী বলেন, মানুষকে সচেতন হতে হবে। অনেকেই মনে করছেন, একটা ভ্যাকসিন নেওয়া হয়ে গেছে, আর দ্বিতীয় ভ্যাকসিন না নিলেও চলবে। এই রকম হবে না। তিনি দাবি করেন, প্রথম ধাপে ৯৫ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় ধাপে ৭২ শতাংশ মানুষ টিকা নিতে পেরেছে। মানুষকে সচেতন হতে হবে। লড়তে লড়তে করোনা হতদ্যম হয়ে পড়বে।

প্রশাসনিক বৈঠক থেকেই ফের স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের জন্য সুর চড়ান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন,

ব্যাঙ্কগুলি অসযোগিতা করছে। কেউ না দিলে সমবায় ব্যাঙ্ক ঋণ দেবে। সরকার গ্যারান্টি দিচ্ছে। তাহলে

ঋণ দিতে অসুবিধা কোথায়। ব্যাঙ্ক যে দয়া করছে না, তা বুঝিয়ে দিতে হবে। যে সমবায় ব্যাঙ্ক ঋণ দিচ্ছে না, তার কাছ থেকে জবাব চাওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, গুরুত্বপূর্ণপ্রকল্পগুলি চলবে। নতুন প্রকল্প এখন নয়। রাজ্যে রাজস্ব আদায় কোভিডের কারণে কমেছে। রাজ্য বাজেট বহির্ভূত খরচ যেন না হয়। কেন্দ্রের কাছ থেকে এখনও ৯০ হাজার কোটি টাকা পায় রাজ্য।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী এদিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,

কাজের নিরিখে পূর্ব বর্ধমান, বীরভূমের মতো জেলা পিছিয়ে। আলিপুরদুয়ার, পশ্চিম বর্ধমান জেলা থেকেও অভিযোগ আসছে। পশ্চিম বর্ধমান সব ব্যাপারে পিছিয়ে রয়েছে কেন? এত অভিযোগ কিসের জন্য। মানুষের সব কাজ গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। ১০০ দিনের কাজে জোর দিতে হবে। দুর্যোগপূর্ণ জেলাগুলি ও  পঞ্চায়েত দফতরের জোর দিতে হবে।

সীমান্ত এলাকায় পয়সা তুলছে কেউ কেউ, এমনটা করা যাবে না। সীমান্ত এলাকার গোটা দায়িত্ব পরিবহণ দফতরকে দেখতে হবে। ৭ তারিখ সেই দায়িত্ব নিতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, যোগ্য লোক যেন ভাতা পায়। ভাতার টাকা প্রতিমাসে ১০ তারিখের মধ্যে ঢুকে যাবে।

পূর্ব মেদিনীপুরের এসপিকে তীব্র  ভর্ৎসনা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

Related Articles

Back to top button
Close