fbpx
অফবিটগুরুত্বপূর্ণলাইফস্টাইলহেডলাইন

সন্তান ইন্টেলিজেন্ট হয় মায়ের ‘জিন’-এর জন্য, কোনও ভূমিকা নেই বাবার, বলছে গবেষণা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: সংসার সুখে হয় রমণীর গুনে। একটি সুন্দর পরিবার গড়ার পিছনে অবদান থাকে পুরুষ, নারী উভয়ের। কিন্তু সন্তান ইন্টেলিজেন্ট হয় কার গুনে বাবা না মা?
বিশেষজ্ঞরা বলছেন একজন শিশুর বুদ্ধিমত্তা নির্ভর করে তাঁর মায়ের জিনের উপর। সেখানে বাবার জিনের কোনও ভূমিকাই নেই।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, শিশুর ইন্টালিজেন্স কোশেন্ট (আইকিউ) কতটা উন্নত হবে তা নির্ভর করে কন্ডিশনিং জিনের উপর, যা একজন শিশু তাঁর মায়ের থেকেই পায়। কাজেই যে সব মহিলারা বুদ্ধিদীপ্ত সন্তান চান তাঁদের নিজেদের উপরই আস্থা রাখতে হবে দারুণভাবে।
‘আন্ডারস্ট্যান্ডিং মাদারস জেনেটিকস’ নামের এই সমীক্ষায় এও দেখা গেছে যে, মায়ের সঙ্গ, ছোঁয়া, আবেগও শিশুর আইকিউ উন্নত করে।

যে সন্তানেরা মায়ের বেশি ঘনিষ্ঠ, মায়ের সঙ্গে বেশি সময় কাটায় তারা মাত্র দু’বছর বয়সেই কঠিন ও জটিল যেকোনও খেলার সমাধান খুব সহজেই করে ফেলছে। ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই গবেষণায় দেখা গিয়েছে, মায়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা শিশুর মস্তিষ্ককে উন্নত করে। পাশাপাশি মায়ের ঘনিষ্ঠ শিশুরা কম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে।

একদল ইঁদুরের উপর গবেষণা করে এই তথ্য আবিষ্কার করেন গবেষকরা। এই গবেষণায় দেখা গেছে, সদ্যোজাত ইঁদুরেরা যারা মায়ের জিন বেশি পেয়েছে তাদের মাথাটা বড়, দেহ ছোট, তারা বেশি বুদ্ধিমান। আর যেসব ইঁদুর ছানার শরীরে পুরুষ জিন বেশি, তাদের মাথাটা ছোট, দেহ বড়, তারা অপেক্ষাকৃত কম বুদ্ধিমান।

তাই এই রিপোর্ট সামনে আসার পর স্বাভাবিকভাবেই মহিলাদের মনের আত্মবিশ্বাস যে আরও বাড়বে তা বলাই বাহুল্য।

Related Articles

Back to top button
Close