fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

১৫০০০ মসজিদ ধ্বংস, ১০ লক্ষ মুসলিমকে বন্দি করেছে চিন: ASPI Report

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ফের মাথাচাড়া দিয়ে উঠল জিনজিয়াং ভূত! ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় উইঘুরদের ওপর চূড়ান্ত নির্যাতন, নির্বিচারে তাদের মানবাধিকার হরণ এবং ডিটেনশন শিবিরে দিনের পর দিন বন্দি রাখার মতো একাধিক অভিযোগ দীর্ঘদিন থেকেই উঠেছে জিনপিং সরকারের বিরুদ্ধে।

এবার অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই)-এর একটি রিপোর্টের সূত্রে জানা গিয়েছে শুধু মাত্র শিনজিয়াং প্রদেশেই বলপূর্বক কাজকর্ম বন্ধ করে দেওয়ার পাশাপাশি কয়েক লক্ষ মুসলিমকে বন্দি করে রাখা হয়েছে ডিটেনশন শিবিরে। শুধু তাই নয়, সরকারি নির্দেশেই সেখানে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কয়েক হাজার মসজিদ ।

সরকার প্রতিষ্ঠিত এবং অজি প্রতিরক্ষা দফতরের অনুমোদন প্রাপ্ত এই থিঙ্ক ট্যাংক এএসপিআই-এর সদর দফতর অবস্থিত ক্যানবেরায়। মূলত স্যাটেলাইট ইমেজ এবং চিন সরকারের নির্দেশে ধ্বংসপ্রাপ্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত রিপোর্ট অনুসারে নিজেদের রিপোর্টে এই দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি। তাদের মতে, সাম্প্রতিক কালে শুধু শিনজিয়াং প্রদেশেই প্রায় ১৬ হাজার মসজিদ ধ্বংস করেছে সে দেশের সরকার। একাধিক মসজিদ আবার মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্তও হয়েছে। তবে এর মধ্যে গত তিন বছরেই অধিকাংশ মসজিদ ভাঙা হয়েছে বলে দাবি রিপোর্টে। মূলত উরুমকি এবং কাশগড়ের শহুরে এলাকায় সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মসজিদ ভাঙার ঘটনা ঘটেছে বলে জানানো হয়েছে ।

রিপোর্টে দাবি, জিনজিয়াং প্রদেশের কমপক্ষে 15 হাজার টি মসজিদে হামলা চালায় চিনা সেনা। চাপালি সমস্ত মসজিদ মাজার কবরস্থান নিমেষে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। ধুলিস্যাৎ করা হয় বহু মুসলিম অধিবাসীদের ঘরবাড়ি ও। মসজিদের উপর হামলা চললেও গির্জা এবং বৌদ্ধ উপসনালয়গুলির কোনও ক্ষতি হয়নি।  জিনজিয়াংয়ে অধিকাংশই তুর্কি ভাষায় অভ্যস্ত। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে তুর্কি বলার ক্ষেত্রেও।

যদি এই রিপোর্টটিকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং মিথ্যে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে চিন। বেজিং র নিয়ে দাবি আন্তর্জাতিক মঞ্চে চিনকে অপদস্থ করতেই অস্ট্রেলিয়াসহ বিদেশি রাষ্ট্রগুলো এদিকে ষড়যন্ত্র।

 

Related Articles

Back to top button
Close