fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

ভারতকে চাপে রাখার চেষ্টা! বিদেশ সচিব শ্রিংলার সফরের পর পাল্টা নেপালে এলেন ওয়েই ফেংও

সম্প্রতি ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার নেপাল সফরের পাল্টা হিসাবে ওয়েই ফেংও তড়িঘড়ি নেপাল সফরে এসেছেন।

বেজিং, সংবাদসংস্থা: একদিকে পাকিস্তান, অন্যদিকে নেপালকে নিয়ে ভারতের সঙ্গে পাল্লা দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে চিন। সীমান্তে কোনাঠাসা হওয়ার পর এবার নেপালকে কাছে টানার জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন চিনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জেনারেল ওয়েই ফেং। সম্প্রতি ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার নেপাল সফরের পাল্টা হিসাবে ওয়েই ফেংও তড়িঘড়ি নেপাল সফরে এসেছেন। কাঠমান্ডুতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানিয়েছেন, ‘নেপালের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা ও সম্পত্তি রক্ষার জন্য সবরকম সাহায্য করবে চিন। এর পাশাপাশি নেপালের সেনাবাহিনীকে সামরিক প্রশিক্ষণের বিষয়েও সাহায্য করা হবে।’

কয়েকদিন আগেই ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা নেপাল সরকারকে প্রয়োজনে অতীতের মতো সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ফলে মানচিত্র বিতর্ক নিয়ে ভারত ও নেপালের মধ্যে যে টানাপোড়েন চলছিল তার সমাধান হবে বলেই মনে করছিলেন কূটনীতিবিদরা। বিষয়টি বুঝতে পেরেই তড়িঘড়ি নেপাল সফরে আসেন চিনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। ভারত ও নেপালের মধ্যে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠার প্রতিবন্ধকতাকে সামনে আনতে ‘মানচিত্র বিতর্ক ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার’ কথা বলেছেন।

এদিকে, চিনের বিদেশ মন্ত্রক এক বিবৃতি প্রকাশ করে জানিয়েছে, ‘নেপালের নেতাদের সঙ্গে দু’দেশের সম্পর্ক বৃদ্ধির বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ওয়েই ফেং। উভয় দেশের মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন ও এই অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতাবস্থা রক্ষার বিষয় নিয়েও কথা হয়েছে। আলোচনার সময় নেপালের সেনাবাহিনীকে সামরিক প্রশিক্ষণ ও সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ওয়েই। এবিষয়ে নেপালের সেনাপ্রধান পূর্ণচন্দ্র থাপার সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর।’ তবে এতকিছুর মাঝে নিজেদের অ্যাজেন্ডার কথাও বলতে ভোলেননি চিনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ওয়েই ফেং। তিনি নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলিকে তাইওয়ানের সঙ্গে কোনওরকম সম্পর্ক না রাখার বার্তা দিয়ে ‘এক চিন’ নীতি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। যার ফলে, নেপালের সার্বভৌমত্ব চাওয়ার পিছিনে চিনের ‘সৎ’ উদ্দেশ্যই প্রশ্ন চিহ্নের মাঝে রয়ে গেছে।

Related Articles

Back to top button
Close