fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বেহাল নিকাশি ব্যবস্থা, এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে জলমগ্ন মালদা শহর, ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

মিল্টন পাল, মালদা: বৃষ্টি হোক বা শুকনো ওয়ার্ডে জমে নর্দমার জল। তার ওপর টানা এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে জলমগ্ন মালদা শহর। জল জমেছে শহরের বিনয় সরকার রোড, রাজমহল রোড, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন মার্কেট, নেতাজি পুরো বাজারে। জলমগ্ন ইংরেজবাজার পৌরসভার ২০’১৯,১৭,১৮ নম্বর ওয়ার্ডে। যার ফলে ঘরবন্দি এলাকার মানুষেরা। ক্ষুব্ধ পুরো এলাকার বাসিন্দারা। প্রশ্নের মুখে শহরের নিকাশি ব্যবস্থা? এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাধারণ মানুষ। যদিও পুর প্রশাসকের দাবি মানুষ নিজেদের বাড়ির সমনে ড্রেন আটকে যার ফলে এই অবস্থা।

আগে থেকেই আবহাওয়া দপ্তর ঘোষণা করেছিল বিগত কয়েকদিন ধরেই উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সেইমতো সোমবার দুপুর থেকে জেলা জুড়ে বৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার দুপুরে টানা এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে জলমগ্ন হয়ে পড়ে শহর। শহরের ১৬ নাম্বার ওয়ার্ডের বাসিন্দা মকবুল শেখ বলেন, বৃষ্টির ফলে বাড়ির মধ্যে জল ঢুকে গিয়েছে। নিয়মিত নর্দমা পরিষ্কার হয় না। যার ফলে এই পরিস্থিতির শিকার হতে হয় আমাদের। বারবার পুরসভাকে জানিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না।শহরের ১৮নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা নির্মল কর্মকার বলেন, আমাদের ওয়ার্ডে বৃষ্টি বা শুকনো সব সময় জল জমে থাকে। জল বেড় করার ব্যবস্থা নেই না পুরসভা। ফলে এলাকায় হাঁটু জল জমে গেছে এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে।যখনই বৃষ্টি হয় তখনি জলমগ্ন হয় এলাকা। এই জল বেড় করতে পুরসভার কোন হেলদোল নেই। বাধ্য হয়ে এই জল পেরিয়ে যাবতীয় কাজ করতে হয়। রাতের অন্ধকারে পোকামাকরের ভয় রয়েছে। বার বার এলাকার বাসিন্দারা জল নিকাশির কথা পুর প্রশাসনকে জানালেও কোন কিছুই হয় না।

বিজেপির মালদা জেলার সহ-সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, পুরসভার নামে সার্কাস চলছে। যার ফলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে। নিয়মিত শহর পরিষ্কার হয় না। মালদা যেন মনে হয় এই রাজ্যে সবচেয়ে নোংরা শহর। এর জন্য দায়ী বর্তমান পুরো প্রশাসকরা।

ইংরেজবাজার পৌরসভার পৌর প্রশাসক নীহাররঞ্জন ঘোষ বলেন,কিছু কিছু জায়গায় জল জমেছে ঠিকই সেখান থেকে জল বার করার ব্যবস্থা করছে পুরসভা।অনেক জায়গায় মানুষ বাড়ির সমনে স্লিলাপ ফেলে ড্রেনের মুখ বন্ধ করে দিয়েছে। সেই কারনে জল বেড় হতে দেরি হচ্ছে। ফলে জল জমছে।

Related Articles

Back to top button
Close