fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাকদ্বীপ মৎস্যবন্দরে সংঘর্ষ, পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে আক্রান্ত ওসি সহ একাধিক পুলিশ কর্মী

বিশ্বজিত হালদার, কাকদ্বীপ:‌ অগ্রিম টাকা নিয়েও কাজে যোগ দেয়নি এক মৎস্যজীবী। রবিবার দুপুরে সেই মৎস্যজীবীকে ধরে কাকদ্বীপ মৎস্যবন্দরে ব্যাপক মারধর করে অগ্রিম দেওয়া ট্রলারের মাঝি। এই খবর চাউর হতেই অন্য মৎস্যজীবীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। মাঝিদের সঙ্গে মৎস্যজীবীরের মারপিট শুরু হয়ে যায়। রীতিমত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় মৎস্য বন্দর। দু’‌পক্ষ একে অপরকে লক্ষ্য করে ইট, পাথর ছুঁড়তে থাকে।

ঘটনার খবর পেয়ে হারুড পয়েন্ট উপকূল থানার ওসি কৃষ্ণেন্দু বিশ্বাস ঘটনাস্থলে আসেন। তিনি গণ্ডগোল থামানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে ওঠে। আক্রান্ত হন ওসি-‌সহ কয়েকজন পুলিশকর্মী। পুলিশ আক্রান্ত হওয়ার খবর পেয়ে সুন্দরবন পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিশাল বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। লাঠি নিয়ে তেড়ে যায় উত্তেজিতদের দিকে। বেশ কিছুক্ষণ পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এই ঘটনায় মোট ৮ জন জখম হয়েছে। জখমদের মধ্যে ওসি-‌সহ ৩ পুলিশকর্মী আছে। মাঝি ও মৎস্যজীবীদের ৫ জন জখম হয়েছে। প্রত্যেককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কয়েকজনের আঘাত গুরুতর হওয়ায় কাকদ্বীপ থেকে ডায়মন্ড হারবার মেডিক্যাল কলেজে রেফার করা হয়েছে। এই ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close