fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘নির্বাচনের আগে অনেকে এসে দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা করবে’ বাঁকুড়ার সভা মঞ্চ থেকে নাম না করে বিজেপিকে তোপ মুখ্যমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: বিধানসভা নির্বাচনের আগে সরকারি কল্যাণ প্রকল্পের কাজ শেষ করতে প্রশাসনিক কর্তাদের সময়সীমা বেঁধে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার বাঁকুড়ার খাতড়ায় সরকারি জনসভা থেকে ‘দোরে দোরে সরকার’প্রকল্পের সূচনা করলেন তিনি। উৎসব কাটলেও এই ইস্যুতেই বাঁকুড়ার সরকারি অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে বিজেপিকে কড়া ভাষায় বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কটাক্ষ, “উৎসব, দুর্গাপুজো, ছটপুজো সব কিছু নিয়ে মামলা করাই বিজেপির কাজ। দুর্গাপুজো, কালীপুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো আমরা করি না? সব করি। তা সত্ত্বেও নির্বাচনের আগে অনেকে এসে দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা করবে। ভোটের আগে অনেক রাজনৈতিক দল আসবে। ব্যাংকে টাকা দেবে। মনে রাখবেন ওই টাকা আপনার টাকা। জমিদারির টাকা নয়। তাই টাকা নিন কিন্তু ভোট দেবেন না।”

এছাড়া এদিন এনআরসি থেকে শুরু করে অত্যাবশকীয় নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্য আইনের সংশোধন নিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে তীব্র ভাবে আক্রমণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষকে বললেন, কেন্দ্র কীভাবে তাঁদের ভাতে মারার ব্যবস্থা করেছে। কেন অত্যাবশকীয় নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্য আইনের সংশোধন আইন লাগু হলে আর কয়েক মাস পরে মানুষকে না খেতে পেয়ে মরতে হবে। কেন এনআরসি লাগু হলে মানুষকে বাংলা ছেড়ে চলে যেতে হবে। একই সঙ্গে একের পর এক মামলা নিয়েও ক্ষোভ ব্যক্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী। আর সেই সব মামলার পিছনে বাম-বিজেপির ভূমিকার কথাও তুলে ধরেন।

করোনা সংক্রমণে লাগাম টানতে দেশজুড়ে লকডাউন  করা হয়। তার ফলে বন্ধ ছিল বেশিরভাগ কর্মপ্রতিষ্ঠান। তাই আয় ঠেকেছিল তলানিতে। এই পরিস্থিতিতে চাকরি হারিয়েছেন বহু মানুষ। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি, করোনা পরিস্থিতিতে বাংলায় কর্মসংস্থান বেড়েছে। এই প্রসঙ্গে কেন্দ্র সরকারকে তোপ দাগেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, নানা প্রকল্প চালু করে তা দিনকয়েকের মধ্যেই বন্ধ করে দেয় কেন্দ্র। তার ফলে ক্রমশই বাড়ছে বেকারত্ব। অথচ রাজ্য সরকারের যেকোনও প্রকল্পে যুক্ত কর্মীদের কাজের সময়সীমা আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সাধারণ মানুষের সমস্যার কথা জানতে ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকার’ এবং ‘কর্মই ধর্ম’ নামে দু’টি প্রকল্পের কথাও ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

আরও পড়ুন: ১ ডিসেম্বর থেকে দুয়ারে দুয়ারে সরকার: মুখ্যমন্ত্রী

কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ফের আর্থিক বঞ্চনার অভিযোগেও সরব হয়েছেন তিনি। এছাড়াও মূল্যবৃদ্ধি ইস্যুতেও কেন্দ্রকে একহাত নেন মুখ্যমন্ত্রী। কালোবাজারি বলেও কেন্দ্র সরকারকে কটাক্ষ করেন। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “দিল্লির সরকার আলুর সরকার। আলু নেই, পিঁয়াজ নেই। এদের আর একটি ভোটও নয়।” দু-তিনমাস বাদে আলু, পিঁয়াজের দাম আরও বাড়ার আশঙ্কাপ্রকাশও করেন মুখ্যমন্ত্রী।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close