fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘যত বাহিনী আছে, নিয়ে আসুন, পারবেন না, আগামীদিনে সবকিছুর ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে উত্তর দেব, তোপ মুখ্যমন্ত্রীর

কর্মসংস্থান নিয়ে বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ফের কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজ্যকে বঞ্চনার অভিযোগে সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বাংলা বঞ্চিত দিল্লির কাছে। রাজ্যের যে প্রকল্প চলছে, তা বিজেপির কথায় করব কেন? কেন্দ্রীয় সরকার এজেন্সি দিয়ে প্রতিমুহূর্তে হয়রানি করে। ৮০ শতাংশ রাজ্যের থেকে নিয়ে রাজা হলাম, হবে না। রাজ্য সরকার কৃষকদের সব ব্যাপারে সাহায্য করে। আমরা ভাল কাজ করছি বলেই খুব হিংসা। বহিরাগত গুন্ডা এসে বলছে গণতন্ত্রে এসব চলতে পারে না। আমফানে শুধু ১ হাজার কোটি টাকা অগ্রিম দিয়েছে।’

এদিন রাজ্যে ক্যাবিনেটের বৈঠকে একাধিক বিনিয়োগে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে সে বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যােপাধ্যায় জানান, নিউটাউনের সিলিকন ভ্যালিতে ২০টি তথ্য প্রযুক্তি সংস্থাকে জমি দেওয়া হল। উইপ্রো জমি চেয়ে রাজ্যকে চিঠি দিয়েছে। সেই আরজি মেনে তাদেরও জমি দেওয়া হবে। এদিকে কলকাতায় আরও একটি ইউনিট খুলতে চলেছে ইনফোসিস। সবমিলিয়ে রাজ্যে তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পে বিনিয়োগের জোয়ার আসছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, এই শিল্প তৈরি হয়ে গেলে বাংলার যুব সম্প্রদায় চাকরি পাবে। লক্ষ লক্ষ কর্মসংস্থান হবে। তবে শুধু কলকাতা, নিউটাউন নয়। রাজ্যেরে বিভিন্ন প্রান্তেই বিনিয়োগ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মমতা। জলপাইগুড়িতে একটি সিমেন্ট সংস্থাকে জমি দেওয়া হয়েছে। সেখানে কারখানা গড়ে উঠলে স্থানীয়দের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বই লিখে, গানের সিডি বিক্রি করে আমার চলে যায়। আমফানে অডিট নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলছে। রাজ্যের কথা না শুনে কেন্দ্রকে দিয়ে করানো হচ্ছে। রাজ্যকে শুধুই বদনাম করার চেষ্টা চলছে। করোনা মোকাবিলায় কী দিয়েছে, শুধু কয়েকটা ভেন্টিলেটর। আগামীদিনে সবকিছুর ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে উত্তর দেব। ভোট আসছে, বাংলাকে তো টার্গেট করবেই। আমি রুশ, ভিয়েতনাম, নাগা, মরাঠিদের ভাষা জানি। যে যে ভাষা জানি, করবেন নাকি চ্যালেঞ্জ? অনেকে টেলিপ্রম্পটারের সাজানো লেখা দেখে ভাষণ দেন। যত বাহিনী আছে, নিয়ে আসুন, পারবেন না।’

আরও পড়ুন:  সারদা মামলায় দেবযানী মুখার্জিকে CBI-এর সঙ্গে সবরকম সহযোগিতা করতে সময় দিল হাইকোর্ট

রাজ্যের অর্থনীতিকে আরও চাঙ্গা করে তুলতে বড়সড় দুটি ঘোষণা করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একটি হল রাজ্যের অকৃষি জমির খাজনা সংক্রান্ত বিষয়ে সুদের ছাড় ও অপরটি হল রাজ্য জুড়ে সরকারি উদ্যোগে ৬১৭টি মেলার আয়োজন যার দরুন ১৫৬ কোটি টাকার অর্থনীতি আবর্তিত হবে। এই দুই ঘোষণাই এবার বাংলার রাজনীতিতে যেমন তৃণমূলকে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে যেমন অনেকটাই ব্যাকআপ দেবে তেমনি রাজ্যের  অর্থনীতিকেও সমৃদ্ধি করবে। বিশেষ করে লোকশিল্পী ও গ্রামীণ হস্তশিল্পীদের আয়ের মুখ দেখাবে। এদিন নবান্ন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে এই ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।স্বচ্ছতা মেনে কাজ করতে হবে, কোথাও পিছিয়ে নেই। ইতিমধ্যেই ৪টি পকসো কোর্ট, আরও ৭টি তৈরি হবে। রাজ্যজুড়ে ৪০টি পকসো আদালত তৈরির পরিকল্পনা। মাঝেরহাট ব্রিজের নাম বদলে রাখা হচ্ছে জয় হিন্দ ব্রিজ।’

Related Articles

Back to top button
Close