fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কেন্দ্রের ঢিলেমি, মাঝেরহাট সেতু চালু হতে বিলম্ব: মুখ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্য সরকারের ঢিলেমির  জন্য মাঝেরহাট সেতু চালু হতে দেরি হচ্ছে, এই দাবি তুলে বৃহস্পতিবারই বিজেপির মিটিং-মিছিল এবং বিক্ষোভ প্রদর্শনে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল তারাতলা চত্বর। কিন্তু মাঝেরহাট সেতু চালু হওয়া দেরির জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের ঢিলেমি দায়ী বলে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকে আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী। রেল মন্ত্রক অনুমতি না দেওয়ার ফলেই এখনো মাঝেরহাট সেতু উদ্বোধন করা যায়নি বলে দাবি মুখ্যমন্ত্রীর।
 বৃহস্পতিবার নবান্নে এক সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রেলের ওপরের অংশে নির্মাণের জন্য  রেল মন্ত্রকের অনুমতির প্রয়োজন ছিল। কিন্তু বিভিন্ন টালবাহানা  করে ৯ মাস ধরে অনুমতি দেয়নি রেল। এখনও সে অনুমতি দিতে ঢিলেমি করছে। আর এখন এই সেতু উদ্বোধন না হওয়া রাজ্যের দোষ হয় কি করে?’ মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, ‘ন’মাস যখন রেল পারমিশন দেয়নি তখন বিজেপি পার্টি তুমি কি ঘুমাচ্ছিলে, না নাক ডেকে হুকো টানছিলে? ন’মাস মিটিং করে করে পায়ে ধরেছি শুধু, যে ক্লিয়ারেন্স দাও। গঙ্গাসাগরের মেলায় আমাদের লোকেরা কত কষ্ট করেছে। আজ এই ২-৩ বছর ধরে বেহালার মানুষ কত কষ্ট করেছে। ন’মাস আগে এটা হয়ে যেতে পারত। শুধুমাত্র রেল আমাদের সঠিক সময় পারমিশন দেয়নি তাই ফেস করতে হয়েছে।’
মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘ রেল মন্ত্রক অনুমতি না দেওয়ার জন্য এখনো ওটা পুরো কমপ্লিট হয়নি। পি ডব্লিউ ডি-র কাজ শেষ হয়েছে, কিন্তু রেলের ১০০ শতাংশ পারমিশন এখনো পাওয়া যায়নি। সেটা দিতে ৭ – ৮ দিন সময় লাগবে। এটা আমাদের ওপরে নয়, এটা কেন্দ্রীয় সরকারের ঢিলেমি এবং আমাদের ঘাড়ে দোষ চাপাতে বিজেপি পার্টির পলিটিক্স করার জন্য। যেটা ১ বছর আগে হয়ে যেতে পারত, মানুষকে হ্যারাস করেছে। সব দায় রাজ্য সরকারের হতে পারে না।’ নবান্ন সূত্রে দাবি, পুজোর আগে থেকে মাঝেরহাট সেতু চালু করার চেষ্টা করছে রাজ্য সরকার। কিন্তু সমস্ত ছাড়পত্র না মেলায় এখনো চালু করা যায়নি। তবে গঙ্গাসাগর মেলার আগে এই সেতু চালু করতে তৎপর রাজ্য প্রশাসন। তবে কেন্দ্রীয় সরকার সহযোগিতা না করলে আরও দেরি হলেও কিছু করার থাকবে না।

Related Articles

Back to top button
Close