fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

আরিয়ার ঘরভর্তি রক্তমাখা টিস্যু, ফাঁকা ওয়াইনের গ্লাস ও খোলা ছাদের দরজা!   অভিনেত্রীর মৃত্যুতে রহস্য

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পরিচারিকা কাজ করতে এসে ডেকে সাড়া না পাওয়ায় পুলিশে খবর দিলে দরজা ভেঙে যোধপুর পার্কের বাড়িতে অভিনেত্রী দেবদত্তা ওরফে আরিয়া বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। কিন্তু তারপরে যে সমস্ত তথ্য প্রমাণ হাতে পেয়েছেন তদন্তকারীরা, তাতে এটি খুন হয়ে থাকতে পারে বলে অনুমান পুলিশের।
শুক্রবার অভিনেত্রীর মৃতদেহের প্রাথমিক ময়নাতদন্তে পাওয়া গিয়েছে, পড়ে গিয়েই আরিয়া বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে রক্ত লেগেছে। পড়ে গিয়েই মাথা, নাক, ঠোঁটে আঘাতের চিহ্ন হয়েছে। আরিয়া বন্দ্যোপাধ্যায়ের একাধিক অসুস্থতা ছিল। কিডনি, লিভার সিরোসিস, হৃদরোগ ছিল আরিয়ার। পাকস্থলীতে পাওয়া গিয়েছে ২ লিটার মদ। অর্থাৎ মৃত্যুর আগে প্রচুর পরিমাণ মদ্যপান করে ছিলেন অভিনেত্রী।
 পুলিশ সূত্রে খবর, ঘটনার দিন খাটে বসে মধু মিশিয়ে ওয়াইন খাচ্ছিলেন দেবদত্তা। খাটের উপর মিলেছে পানমশলার প্যাকেট। বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে চিকিৎসা সংক্রান্ত বেশ কিছু নথি। যার থেকে পুলিশ জানতে পেরেছে, এক বছর আগে হেপাটাইটিস বি-তে আক্রান্ত হন অভিনেত্রী। ভুগছিলেন কিডনির সমস্যায়। কিন্তু বছরখানেক ধরে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন না দেবদত্তা। সাম্প্রতিক সময়ে তার হাতে কোনও বড় প্রজেক্ট না থাকায় মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন বলে মনে করছে পুলিশ।
  ঘর থেকে মিলেছে  প্রচুর সংখ্যক টিস্যু পেপার, তাতে রয়েছে রক্তের দাগ। পুলিশ জানতে পেরেছে, মাঝেমধ্যেই নাক-মুখ থেকে রক্ত পড়ত অভিনেত্রীর। পুলিশের দাবি, ঘটনার দিন বাইরে থেকে খাবার আনালেও, তা খাননি দেবদত্তা। পাশাপাশি, বাড়ির একতলা ও দোতলার দরজা বন্ধ থাকলেও খোলা ছিল ছাদের দরজা। তিনি নিজেই ছাদের দরজা খুলে রেখে ছিলেন নাকি তার সঙ্গে বসে মদ্যপান করে ঘর ভেতর থেকে বন্ধ করে ছাদ দিয়ে পালিয়ে গিয়েছে, তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ।
 ৩ তলা পৈতৃক বাড়িতে একাই থাকতেন অভিনেত্রী। পরিচারিকার দাবি, শুক্রবার সকালে এসে ডাকাডাকি করলেও গেট খোলেননি অভিনেত্রী। মোবাইল ফোনেও সাড়া মেলেনি। তিনি বলেন, আগের দিন রাতে রান্না করতে বারণ করেছিলেন অভিনেত্রী। খবর পেয়ে লেক থানার পুলিশ এসে ৩ তলার ঘরের দরজা ভেঙে উদ্ধার করে অভিনেত্রীকে। ৩ তলার একটি ঘরের ভিতর থেকে পোষা কুকুরের চিৎকার শোনা যাচ্ছিল। বাইরে থেকে ঘরের দরজা বন্ধ ছিল। অন্য আরেকটি ঘরে টিভির সামনে পড়ে একাধিক মদের বোতল। দুটি বোতল অর্ধেক খালি। পাশেই পড়ে রয়েছে একটি গ্লাস। প্রতিবেশীদের মতে, অভিনেত্রী যখন তখন আসতেন যেতেন। বিশৃঙ্খল জীবন যাপন করতেন। সব মিলিয়ে অভিনেত্রীর রহস্যমৃত্যুর জট এখনো কাটেনি বলে দাবি পুলিশের।

Related Articles

Back to top button
Close