fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হিন্দু গ্রামবাসীদের দানের অর্থ দিয়ে তৈরি হল সম্প্রীতির পীঠস্থান

শ্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: বসিরহাট মহাকুমার বসিরহাট ১ নম্বর ব্লকের সরদারহাটি গ্রাম। হিন্দু-মুসলিমদের উভয় সম্প্রদায়ের সমন্বয়ে গ্রামের মানুষ এক নতুন সম্প্রীতির পীঠস্থান পেল। ১৮৭৯ সালে  মাত্র এক টাকার উপরে এই প্রার্থনা শালা “মাজাদ গাজী”  তৈরি হয়েছিল। চারিদিকে দরমার বেড়ার আর ছাদ ছিল তখন। বহুদিন ধরে একদিকে সংস্কার অন্যদিকে ধর্মীয় এই পীঠস্থান অবহেলিত হয়ে পড়েছিল।

দুই বিঘা জমির ওপর এক কোটি টাকা ব্যয়ে আড়াই বছর ধরে তৈরি হল এই ধর্মস্থল। এই প্রার্থনা শালা তৈরি করতে গ্রামের সাধারণ মানুষরাই অর্থ দান করলেন। এই সাধারণ মানুষের মধ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষরাই বেশী রয়েছে। গ্রামের সব সম্প্রদায়ের মানুষের কাছ থেকে দানের অর্থ দিয়ে সংস্কার করা হল প্রার্থনা শালা “মাজাদ গাজী”  নামের এই উপাসনা স্থল। সংস্কারের পর সম্পূর্ণ আধুনিক শীততাপ নিয়ন্ত্রিত, আলোকসজ্জা দিয়ে ঘিরে দেওয়া হল এই “মাজাদ গাজী” র দালান ঘর।

গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন যে, এই উপাসনা স্থলে গিয়ে সবধর্মের মানুষরাই প্রার্থনা করতে পারবেন। কারণ সব ধর্মের মানুষের মেলবন্ধনে তৈরি হয়েছে এই উপাসনা ঘর। এটা মানুষের কাছে সম্প্রীতির পীঠস্থান বলে মনে করছেন সমাজের বিশিষ্ট জনেরা। এই মাজাদ গাজীর সম্পাদক মহাসিন বিশ্বাস, সভাপতি শফিকুল ইসলাম উদ্যোক্তা রায়হান  আহমেদ কুরেশি বলেন, “১৪১ বছরের এই প্রার্থনা স্থল খুবই ভগ্নদশার মধ্যে ছিল। আগে ১৫০ জন প্রার্থনা করতে পারত, এখন এখানে প্রায় ৫৫০ জন একসঙ্গে প্রবেশ করতে পারবেন। গ্রামের মানুষের কাছে শতাব্দীপ্রাচীন এই ধর্মস্থল ইতিহাস বহন করে আসছে। সমাজের ব্যবসায়ী থেকে দিনমজুর শ্রমিক,হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সকল ধর্মের মানুষের দানের অর্থের টাকা রয়েছে এই উপাসনা স্থলে। এটা আমাদের সম্প্রীতির পীঠস্থান”।

Related Articles

Back to top button
Close