fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

২৪ ঘন্টার মধ্যে ভোলবদল, রাজ্যে শুরু হয়েছে গোষ্ঠী সংক্রমণ, নবান্নে জানালেন স্বরাষ্ট্রসচিব

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  প্রতিদিনই রের্কড হারে বাড়ছে সংক্রমণ। কোন ভাবেই বাধ মানছে না সংক্রমণ। বাংলায় গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে। এদিন তা মেনে নিলেন স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। কেরলে পর বাংলা, যারা গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা স্বীকার করে নিল। রাজ্যের কিছু কিছু জায়গায় শুরু হয়েছে গোষ্ঠী সংক্রমণ, একথা নবান্নে বসে স্বীকার করলেন খোদ স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার বিকেলে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসে একথা জানালেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব। তিনি বলেন, ‘রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায় গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। সেই কারণেই সংক্রমণ আটকাতে ফের সাপ্তাহিক দু’দিন করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

যদিও কোথায় কোথায় এই সংক্রমণ হয়েছে তা নিয়ে বিস্তারিত কিছুই বলেননি স্বরাষ্ট্রসচিব। তবে ওয়াকিবহাল মহলের মতে, মালদা, উত্তর দিনাজপুর, কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগণার মতো একাধিক জেলার কিছু কিছু এলাকাতে এই সংক্রমণ হতে পারে। স্বরাষ্ট্রসচিবের এই মন্তব্য মোটেই অমূলক নয় কারণ, এদিন যে বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রসচিব এই মন্তব্য করেছেন, সেই বৈঠকে ছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়াও, মুখ্যসচিব, স্বাস্থ্যসচিব-সহ রাজ্য প্রশাসনের সব শীর্ষকর্তারাই উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরাও।

আরও পড়ুন: গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা স্বীকার করে সপ্তাহে ২দিন সম্পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা নবান্নের

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, গোষ্ঠী সংক্রমণ হলেও চিন্তার কিছু নেই। কারণ, ইতিমধ্যই ছোট ছোট ক্লাস্টার সংক্রমণ অত্যন্ত দ্রুতগতিতে ছড়াচ্ছে, দৈনিক সংক্রমণ ও মৃত্যুর হিসেবই তার প্রমাণ। তাই তাঁদের মতে, এই এলাকাগুলিতে আরও বেশি করে নজরদারি ও কঠোর লকডাউন প্রয়োজন। তার সঙ্গে নমুনা পরীক্ষাও জরুরী। তাই ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে স্বরাষ্ট্রসচিবের এই মন্তব্য প্রমাণ করে রাজ্য সরকার এই তত্ত্বই বিশ্বাস করছে। অর্থাৎ রাজ্যে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়ে গিয়েছে, সেটা আর অস্বীকার করার নেই। যদিও কেন্দ্র এখনও এই নিয়ে কোনও মন্তব্য করেনি।

 

Related Articles

Back to top button
Close