fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে, আমিই নাড্ডাজির কাছে সময় চেয়েছি: দিলীপ ঘোষ

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: ক’দিন ধরেই বঙ্গ রাজনীতিতে একটা জল্পনা ডালপালা মেলেছে। খবরটা হল, বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে দিল্লিতে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা দিলীপ ঘোষকে ডেকে পাঠিয়েছেন। লাটাগুড়িতে রাজ্যসভাপতিকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন,’ বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। আমিই নাড্ডাজির কাছে সময় চেয়েছি। আগামী সপ্তাহে দিল্লি যাওয়ার ইচ্ছা রয়েছে।’

সম্প্রতি দিলীপ ঘোষকে কেন্দ্র করে একাধিক বিভ্রান্তিকর খবর রটেছে। কখনও রটেছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে বিরক্ত হয়ে সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি চেয়েছেন । কখনও খবর হয়েছে মুকুল রায়ের সঙ্গে বনিবনা হচ্ছে না। তাই দিল্লির বৈঠক ছেড়ে রাজ্যে ফিরে আসেন মুকুল রায়। পরে দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় দুজনেই এই খবরের সত্যতা অস্বীকার করেন। মুকুল জানান চোখের চিকিৎসার জন্যই আগে কলকাতা ফিরেছেন। দিলীপ ঘোষও জানান, এবিষয়ে মুকুলদা দলের কাছে আগেই অনুমতি নিয়েছিলেন। আবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র সঙ্গে ও দিলীপ ঘোষের সম্পর্ক নিয়েও বিতর্ক তৈরি হয়। এক্ষেত্রেও সব জল্পনায় জল ঢালেন মেদিনীপুরের সাংসদ। বাবুলও দিলীপ ঘোষের জন্মদিনে ফোন করেন। এমনকি টুইট করেও‌ শুভেচ্ছা জানান।

আরও পড়ুন: অনুব্রত মন্ডলকে ক্রিমিনাল,মাফিয়া বলে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়

এক্ষেত্রেও সব জল্পনা উড়িয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ দিল্লিতে গিয়ে এবার বৈঠকের ফাঁকে নাড্ডাজির সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলাম। উনি ৭ তারিখ সময় দিয়েছিলেন। কিন্তু এখানে ৮ তারিখ সম্পূর্ণ লকডাউন ছিল। তাই আগেই চলে আসি। আমাকে জন্মদিনের দিন ফোন করে শুভেচ্ছা জানালেন নাড্ডাজি। ইচ্ছে আছে আগামী সপ্তাহে দিল্লি যাওয়ার। তখন গিয়ে নাড্ডাজির সঙ্গে দেখা করবো।’ মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, ‘ শাসকদলের একটা অংশ ইচ্ছাকৃতভাবে সংবাদ মাধ্যমের একাংশকে ব্যবহার করে দলের মধ্যে ফাটল ধরাবার চেষ্টা করছে। তবে বিজেপির আদর্শের ভিত খুব মজবুত, টলানো যাবে না।’

Related Articles

Back to top button
Close