fbpx
দেশহেডলাইন

কৃষি আইনের প্রতিবাদে এবার কংগ্রেসের ‘কিষাণ যাত্রা’, আসরে নামছেন খোদ রাহুল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: কৃষি বিলের বিরুদ্ধে ফুঁসছে দেশের কৃষক সমাজ। লাগাতার চলছে বিক্ষোভ-আন্দোলন।নতুন কৃষি আইনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে আন্দোলন করার কথা আগেই ঘোষণা করেছিল কংগ্রেস। ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত দেশজুড়ে প্রতিবাদ আন্দোলন করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। সেই পরিকল্পনারই অংশ হিসেবে এবার তারা শুরু করতে চলেছে ‘কিষাণ যাত্রা’। দেশের কৃষকদের সঙ্গে একাত্মতা গড়ে তুলতে চলতি সপ্তাহেই কিষাণ যাত্রা শুরু করতে চলেছে দেশের বৃহত্তম বিরোধী দল।

পাঞ্জাবের সঙ্গরুর থেকে শুরু করে যা শেষ হবে রাজধানী দিল্লিতে পৌঁছে। পাঞ্জাব ও হরিয়ানার বিভিন্ন জেলায় পৌঁছবে এই কিষাণ যাত্রা। কংগ্রেসের প্রাক্তন নেতা ও সাংসদ রাহুল গান্ধী জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি এই আন্দোলনে যোগ দেবেন এবং পুরোভাগে থাকবেন । জানা গিয়েছে, সঙ্গরুরে একটি জনসভায় বক্তব্য রাখবেন রাহুল। তারপরই সেখান থেকে শুরু হবে কিষাণ যাত্রা। সেখান থেকে পাটিয়ালার দিকে এগিয়ে চলবে মিছিল।

কৃষি আইনের বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই সরব কংগ্রেস। কয়েক দিন আগেই কৃষি আইনের বিরুদ্ধে চরম পন্থা অবলম্বনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সোনিয়া গান্ধী। সংবিধানের ২৫৪(২) ধারা ব্যবহার করে অন্তত কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলিতে এই আইন কার্যকর না করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। শুধু কংগ্রেস শাসিত রাজ্যে এই আইন লাগু না করার সিদ্ধান্ত নিয়েই ক্ষান্ত থাকেনি কংগ্রেস। দলের একাধিক নেতা ইতিমধ্যেই এই আইনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। এদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। ডিএমকে সুপ্রিমো এম কে স্ট্যালিনও এই আইনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়া নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছেন।

আরও পড়ুন: রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের ৭৫ তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী, বাংলার রাজ্যপাল

হরিয়ানার কংগ্রেস সভাপতি কুমারী সেলজা জানিয়েছেন, বুধবার দিল্লিতে হরিয়ানায় অল ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটির ইনচার্জ বিবেক বনশালের সঙ্গে বৈঠক করেছেন রাজ্যের কংগ্রেস নেতারা। আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে রাহুল গান্ধী নিজে হরিয়ানা ও পঞ্জাবে আসবেন বলেও জানিয়েছেন সেলজা। কৃষকদের অধিকারের জন্য প্রতিটি স্তরে কংগ্রেস আন্দোলন করবে বলেও জানানো হয়েছে। কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলিতে এই ‘কালো আইন’ যাতে লাগু করা না হয়, সেই নির্দেশ দিয়েছেন সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। জানা গিয়েছে, কৃষি আইনের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের অবস্থান একদম স্পষ্ট করে দিতে চান রাহুল। সেই সঙ্গে মুখোশ সরিয়ে মোদি সরকারের ‘কৃষক বিরোধী’ মুখ বার করে আনাই কংগ্রেসের লক্ষ্য।

 

Related Articles

Back to top button
Close