fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

শশার জমিতে লাল পোকার নিয়ন্ত্রণ

নিজস্ব প্রতিনিধি: বারো মাস শশার চাহিদা থাকে বাজারে। শরীরের পাশাপাশি রূপচর্চাতেও এই প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। মধুমেহ রোগে এই ফল অত্যন্ত উপাদেয়। শশাতে প্রায় ৯৫ শতাংস জল থাকায় এটি শরীরের আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে এবং দেহের আভ্যন্তরীন তাপমাত্রাকে নিয়ন্ত্রণ করে শরীরকে ঠান্ডা রাখে। এ হেন ফলের চাষে বিভিন্ন রকম পোকার আক্রমণ হয়। তেমনই এক লাল পোকা।

লাল পোকা হল কুমড়ো জাতীয় গাছের একটি ক্ষতিকারক কীট। পূর্ণাঙ্গ পোকা শশা গাছের বীজপত্র, কচিপাতা, ফুল খেয়ে নষ্ট করে দেয়। পূর্ণাঙ্গ স্ত্রী পোকা গাছের গোড়ায় সংলগ্ন ভেজা মাটিতে ডিম পাড়ে। ডিম ফুটে কীটগুলি বেরিয়ে এসে শেকড়, মাটির ভেতরের কাণ্ড ও মাটি স্পর্শ করা ফলের ক্ষতি করে। এছাড়া পূর্ণাঙ্গ পোকাগুলি শশাগাছের পাতার ক্লোরোফিল অংশ খেয়ে ফেলে। যদি লাল পোকার দ্বারা মারাত্মক ভাবে শশাগাছ আক্রান্ত  হয় তাহলে পাতাগুলি জালিকার মতো হয়ে যায়। এর ফলে গাছে সালোকসংশ্লেষ ঠিক মতো হয় না। ফলত গাছের বৃদ্ধি কমে এবং ফুল ও ফলের সংখ্যাও কমে যায়। সারা বছর ধরেই কুমড়ো গোত্রের ফসল চাষ হয়। তাই কোনও জমিতে একটি ফসল উঠে গেলে এই কীটটি অনায়াসে আশ্রয়দাতা ফসল পেয়ে যায়। তাই পোকার নিয়ন্ত্রণে সংসহত ব্যবস্থা নিতে হবে।

শশা চাষের জমি ভালোভাবে কর্ষণ করে রোদ খাওয়াতে হবে এবং পূর্ববর্তী ফসলের অবশিষ্টাংশ তুলে পুড়িযে ফেলতে হবে। শশার বীজ নির্দিষ্ট এলাকায় বপন করতে হবে। জমি পরিষ্কার-পচ্ছিন্ন রাখতে হবে। জমি আগাছা দেখা দিলে তা তুলে ফেলতে হবে। গাছের বয়স অনুযায়ী সুসম হারে সার প্রয়োগ করা উচিত। অতিমাত্রায় নাইট্রোজেন জনিত সার ব্যবহার করলে এই কীটের প্রকোপ বাড়ে। শশার জমি নিয়মিত পরিদর্শন করতে পারলে ভালো। যদি পোকার লক্ষণ দেখা যায় তাহলে পূর্ণাঙ্গ পোকা সংগ্রহ করে বিনষ্ট করতে হবে।

এই পোকা নিয়ন্ত্রণে সবচেয়ে ভালো উপায় হল আক্রান্ত গাছে কেরোসিন মিশ্রিত ছাই প্রয়োগ করা। এই পোকা আক্রমণের শুরুতে ১০ হাজার পিপিএম জাতীয় নিমজাত কৃষিবিষ প্রতি লিটার জলে ২-৩ মিলি মিশিয়ে প্রয়োগ করলে সুফল পাওয়া যায়। এছাড়া মাটিতে এই নিমজাত কৃষিবিষ প্রযোগ করলে এই পোকার ডিম বিনষ্ট হয়। রাসায়নিক উপায়ে এই পোকা নিয়ন্ত্রণে প্রতি লিটার জলে ক্লোরোপাইরিফস ২.৫ মিলি বা কার্বারিল ২.৫ গ্রাম বা ট্রায়াজোফস ১ মিলি হারে গুলে স্প্রে করতে হবে। কীটনাশক দ্রবণে অবশ্যই স্টিকার ব্যবহার করা উচিত। এই পদ্ধতিতে পরিচর্যা করলে শশাগাছে লাল পোকার উপদ্রব কমবে এবং ফলন ভালো হবে।

Related Articles

Back to top button
Close