fbpx
দেশহেডলাইন

টেস্টিং-ট্রেসিং-ট্রিটমেন্টে জোর, সাত রাজ্যকে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের মাত্র ৬০ জেলা এখন চিন্তার কারণ, সাত রাজ্যের সঙ্গে করোনা  বৈঠকে এমনটাই জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সাত রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি রীতিমতো উদ্বেগজনক। এর পাশাপাশি তিনি এও বলেন, কোভিড টেস্ট, কনট্যাক্ট ট্রেসিং ও ট্রিটমেন্ট অর্থাত্‍ চিকিৎসাতেই ঠেকানো যাবে করোনা অতিমহামারী। করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্ত নিয়ে বুধবার দেশের সাতটি রাজ্যের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানেই তিনি বলেন, ‘দেশে সতাশোরও বেশি জেলা রয়েছে। এর মধ্যে ৬০টি জেলা এখন চিন্তার কারণ। ওইসব জেলা সাত রাজ্যের অন্তর্গত।’ এনিয়ে ওইসব রাজ্যকে সতর্ক করেন প্রধানমন্ত্রী। বুধবারের বৈঠকে ছিলেন মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্ণাটক, উত্তরপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, দিল্লি ও পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীরা। প্রধানমন্ত্রীর ওই সাত রাজ্যকে পরামর্শ, সাত দিন ধরে ওইসব জেলা বা ব্লক স্তরে মানুষের সঙ্গে কথা বলুন। বোঝার চেষ্টা করুন, কীভাবে তারা করোনা মোকাবিলায় সতর্কতা অবলম্বন করছে।

সংক্রমণ রুখতে মাইক্রো কনটেনমেন্ট জ়োনে আরও বেশি পরীক্ষা ও কনট্যাক্ট ট্রেসিং করার উপরে জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ছোট ছোট এলাকাগুলি থেকে যাতে সংক্রমণ বেশিমাত্রায় ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। তাঁর কথায়, ‘বেশিরভাগ কোভিড সংক্রমণের ক্ষেত্রেই রোগীর উপসর্গ নেই। তাই সেক্ষেত্রে সঠিক পদক্ষেপ নিতে হবে। এমন পরিস্থিতিতে করো পরীক্ষা নিয়ে নানারকম গুজব ছড়াচ্ছে। অনেকেই মনে করছেন, কোভিড টেস্টে ঝুঁকি আছে। কিছু মানুষ আবার ভাইরাস সংক্রমণের গুরুত্বই বুঝতে পারছেন না। তাই সঠিক বার্তা সকলের কাছে পৌঁছনো উচিত।’

আরও পড়ুন: ট্রাক ধর্মঘটের ডাক… পুজোর আগে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম আরও বাড়ার আশঙ্কা

গত ২৪ মার্চ মধ্যরাত থেকে সারা দেশে লকডাউন চালু হয়েছিল। আজ ছ’মাসের মাথায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রথম লকডাউনে সাফল্য পাওয়া গিয়েছিল। মোদি জানান, কিছু রাজ্যে সপ্তাহে একদিন বা দু’দিন করে লকডাউন শুরু করেছে, সেটা কতটা কার্যকরী এবং তাতে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে কোনও ক্ষতি হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে বলেন তিনি।

 

Related Articles

Back to top button
Close