fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মৃত পরিযায়ী শ্রমিকদের স্মরণে দেশ জুড়ে শোকদিবস পালন AIUTUC-এর

শান্তনু অধিকারী, সবং: পরিযায়ীদের মৃত্যুমিছিল চলছেই। কেউ পথদুর্ঘটনায়, কেউ আবার দীর্ঘপথ হাঁটার যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে ঢলে পড়েছেন মৃত্যুর কোলে। সেভ লাইফ ফাউন্ডেশনের রিপোর্ট অনুযায়ী গত ২৪ মার্চ থেকে ৩ মে পর্যন্ত এ দেশে সর্বমোট বিয়াল্লিশজন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। সেই মৃত পরিযায়ীদের স্মরণে সারা দেশজুড়ে শোকদিবস পালন করল এসইউসিআইয়ের শ্রমিক সংগঠন AIUTUC।

মহারাষ্ট্রের ঔরঙ্গাবাদে ট্রেনের চাকায় পিষ্ট হয়ে ষোলোজন শ্রমিকের মর্মান্তিক মৃত্যুর রেশ এখনও দেশজুড়ে। এরইমধ্যে হায়দ্রাবাদ থেকে উত্তরপ্রদেশ ফেরার পথে গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন কমপক্ষে পাঁচজন শ্রমিক। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি এগারো। দীর্ঘপথ হাঁটতে হাঁটতে বাধ্য হয়ে জনা কুড়ি শ্রমিক উঠে বসেছিলেন একটি আমবোঝাই ট্রাকে। মধ্যপ্রদেশে সেই ট্রাক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।

তেলেঙ্গানার একটি লংকার খামারে কাজ করত ছত্তিশগড়ের মাত্র বারো বছরের পরিযায়ী কন্যা জামলো মকদম। লকডাউনের কারণে তেলেঙ্গানা থেকে বীজাপুরের নিজের গ্রামে ফিরতে চেয়ে মৃত্যুবরণ করে। তিনদিন ধরে একটানা হাঁটার ধকল নিতে পারেনি ছোট্ট একরত্তি শরীরটা। প্রবল জলকষ্ট ও শ্বাসকষ্টে অসহায়ভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

সেইসকল পরিযায়ী শহিদদের স্মরণে AIUTUC-এর সবং ব্লক কমিটির পক্ষ থেকেও শোকদিবস পালন করা হয়। সবং ও তেমাথিনী বাজারে শোকবেদী স্থাপন করে তাতে মাল্যদান করা হয়। এ উপলক্ষে উপস্থিত ছিলেন দীনেশ মেইকাপ, তপনকুমার শাসমল, মদনমোহন পাত্র, মোহন লায়া, বিকাশ ঘোড়াই, তরুণ লায়া প্রমুখরা।

মৃত পরিযায়ীদের পরিবারকে যথোপযুক্ত আর্থিক ক্ষতিপূরণের দাবিও তোলা হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে। ভিনরাজ্যে যাঁরা এখনও আটকে রয়েছেন, তাঁদের নিখরচায় বাড়ি ফেরানোর দাবির পাশাপাশি তাঁদের প্রত্যেকের জন্য রেশন, চিকিৎসা ও বাড়ির ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে, এমন দাবিও তোলেন AIUTUC-র নেতৃবৃন্দ।

ইদানীং সরকারিভাবে প্রচার চলছে― রোগকে ঘৃণা কর, রোগীকে নয়। এই প্রচারের প্রসঙ্গ তুলে সংগঠনের পক্ষ থেকে দীনেশ মেইকাপ জানান যে, এত প্রচার হওয়া সত্ত্বেও রাজ্যের একাধিক জায়গায় মানুষের অজ্ঞতার শিকার হচ্ছেন পরিযায়ীরা। প্রাণহানির ঘটনাও ঘটে চলেছে। ‘এ বিষয়ে সরকার, স্থানীয় প্রশাসন আরও সজাগ ও সতর্ক হন’― দাবি তোলেন দীনেশবাবুরা।

Related Articles

Back to top button
Close