fbpx
কলকাতাহেডলাইন

করোনা আবহে বিধানসভায় ভার্চুয়াল অধিবেশন! চূড়ান্ত শিলমোহর দেবেন মুখ্যমন্ত্রী

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: রাজ্যজুড়ে করোনার বর্ধিত প্রকোপে বিধানসভায় ভার্চুয়াল অধিবেশন! প্রাথমিকভাবে এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিধানসভাসূত্র মারফত এমনটাই জানা গিয়েছে। রাজ্যের পরিস্থিতি যথেষ্ট উদ্বেগজনক। সাধারণ মানুষ থেকে বিধায়ক অনেকেই আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়। তবে সম্প্রতি ফলতার বিধায়ক তমোনাশ ঘোষের মৃত্যু শাসক দলের ভিত অনেকটাই নড়িয়ে দিয়েছে। নিরাপদ কেউ নয় একথা বুঝেই বাস্তব পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এমনটাই সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে বিধানসভার সরকারপক্ষ। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
গত ফেব্রুয়ারি মাসে বাজেট অধিবেশনের পর দফতরওয়ারি বাজেট পেশ করতে শেষ অধিবেশন বসেছিল মার্চ মাসে। সে সময়ে করোনার জেরে দফতরওয়ারি অধিকাংশ বাজেট গিলোটিনে পাঠিয়ে দ্রুত শেষ করতে হয়েছিল অধিবেশন। নিয়ম অনুযায়ী, বাজেট পেশের ছ’মাসের মধ্যে আরও একদফা অধিবেশন বসিয়ে বরাদ্দ অর্থের কার্যকর ভূমিকায় নিশ্চিত করতে হয়। ঠিক এই কারণেই আবারও জরুরি ভিত্তিতে অধিবেশন বসাতে চাইছে সরকারপক্ষ। প্রাথমিক ভাবে অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় জোড়-বিজোড় সংখ্যায় বিধায়কদের হাজির করে অধিবেশন বসাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু রাজ্যের কোভিড সংক্রমণের পদ পরিবর্তন করছে তাতে আর সাহস দেখতে পারল না। অগত্যা বিল পাশের জন্য ভারচুয়াল অধিবেশনের দিকে ঝুঁকতে বাধ্য হল সরকারপক্ষ। তবে সবটাই এখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশের অপেক্ষায়। অবশ্য এক্ষেত্রে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ। অধ্যক্ষ বলেছেন, ‘এখনও দিনক্ষণ কিছু ঠিক হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী বললেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’
একুশের নির্বাচনের আগে শাসক শিবির  শুধু মুখে নয় কাজেও করে দেখতে চায়। তাই পুরসভার কাজে আরও জর বাড়ানোর প্রয়োজন। এমত অবস্থায় পুরসভার নানা প্রকল্পের কাজের জন্য অর্থের প্রয়োজন। একই সঙ্গে নির্বাচনের আগে একাধিক প্রক্রিয়াগত দিক রয়েছে, যেগুলো দ্রুত শেষ করতে হবে। তা ছাড়া গণপিটুনি রোধের জন্য আইন প্রণয়ন এখনও হয়নি। ঠিক এই কারণগুলির জন্যই অধিবেশন বসানো প্রয়োজন। তবে এই পরিস্থিতিতে প্রত্যেক বিধায়ক, বিশেষ করে প্রান্তিক এলাকার বিধায়কের হাতে থাকতে হবে নিদেনপক্ষে ন্যূনতম এন্দ্রয়েড ট্যাব বা স্মার্টফোন বা ল্যাপটপ। ২০১১সালে ক্ষমতায় আসার পরই সরকারের তরফে প্রত্যেক বিধায়ককে একটি করে ট্যাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে অনেকেরই ট্যাবের অবস্থা খারাপ। ফলে ভার্চুয়াল  অধিবেশনের জন্য খারাপ ট্যাব যাতে বাধা না হয়ে দাঁড়ায় প্রয়োজনে সেই খারাপ ট্যাব বদলেও দেওয়া হতে পারে বলে সূত্রের খবর। যদিও অধ্যক্ষ জানিয়েছেন, ভার্চুয়াল অধিবেশন করতে কোন সমস্যা হবে না। সব দিক থেকে বিধানসভা তৈরি।
অন্যদিকে, চলতি মাসেই বিভিন্ন স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারমানদের নিয়ে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অধ্যক্ষ। পরে সিদ্ধান্ত বদলে কমিটির চেয়ারম্যানদের বিধানসভায় ডেকে আনার কথা ভাবা হয়েছিল। কিন্তু সেই ভাবনা আপাতত বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অধ্যক্ষ।

Related Articles

Back to top button
Close