fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

দেশের করোনা গ্রাফ উর্দ্ধমুখী, মোট আক্রান্তের সংখ্যা পার হল ৪৮ লক্ষ

ব্রাজিলকে ছাপিয়ে সুস্থতার নিরিখে দ্বিতীয়তে উঠে এল ভারত

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনার হার। শেষ ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হলেন আরও ৯২ হাজার ৭১ জন। এই সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১,১৩৬ জনের।গত কয়েকদিনে দেশে আক্রান্তের সংখ্যার পাশাপাশি বেড়েছে সুস্থতার হারও। তার ফলস্বরূপ বর্তমানে ব্রাজিলকে ছাপিয়ে বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয়স্থানে উঠে এসেছে ভারত।কোভিড-১৯ সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭৭,৫১২ জন। তবে সংক্রমণে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুও হয়েছে ১১৩৬ জনের। দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মোট ৪৮,৪৬,৪২৭। সংক্রমণে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৭৯,৭২২ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৩৭,৮০,১০৭ জন। ভারতে এখন অ্যাকটিভ কেস ৯,৮৬,৫৯৮। দেশে এখান সুস্থতার হার প্রায় ৭৮ শতাংশ। আর মৃত্যুহার ১.৬৪ শতাংশ। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নয়া বুলেটিন জানাচ্ছে দেশে মোট করোনা টেস্টের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫.৬২ কোটি।

ভারতের কোভিড পরিসংখ্যানে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। এখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০,৩৭,৭৬৫। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ২৯,১১৫ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭,২৮,৫১২ জন। মহারাষ্ট্রে অ্যাকটিভ কেস ২,৮০,১৩৮। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ। সেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৫৭,৫৮৭। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৪৮৪৬ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪,৫৭,০০৮ জন। অন্ধ্রপ্রদেশে অ্যাকটিভ কেস ৯৫,৭৩৩।

আরও পড়ুন: নেপালের ভূমিধস কেড়ে নিল ১২ জনের প্রাণ, নিখোঁজ ২১… যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে উদ্ধারকার্য

তৃতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। এখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪,৯৭,০৬৬। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৮৩০৭ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪,৪১,৬৪৯ জন। তামিলনাড়ুতে অ্যাকটিভ কেস ৪৭,১১০। চতুর্থ স্থানে রয়েছে কর্নাটক। এখানে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৪,৪৯,৫৫১ জন। কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৭১৬১ জনের। সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩,৪৪,৫৫৬ জন। কর্নাটকে এখন অ্যাকটিভ কেস ৯৭,৮৩৪। পঞ্চম স্থানে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। এখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩,০৫,৮৩১। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৪৩৪৯ জন। সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২,৩৩,৫২৭ জন। উত্তরপ্রদেশে এখন অ্যাকটিভ কেস ৬৭,৯৫৫। ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে রাজধানী শহর দিল্লি। এখানে এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২,১৪,০৬৯। কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৪৭১৫ জনের। সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ১,৮১,২৯৫ জন। দিল্লিতে এখন অ্যাকটিভ কেস ২৮,০৫৯।

 

Related Articles

Back to top button
Close