fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দিনহাটায় করোনা সচেতনতায় রাস্তায় বিধায়ক

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: একটানা লকডাউন এর মধ্যে সরকারিভাবে দোকানপাট খোলার জন্য ছাড় দেওয়া হলেও ভিড় হচ্ছে কোথাও কোথাও। আর এই ভিড় রোধে দিনহাটার ব্যবসায়ীরা পুর কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে সকাল ৮ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেন। সেইমতো রবিবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়। বেলা ১২ টার পর যারা দোকান খোলা রাখবে তাদের জন্য কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও ঘোষণা করা হয়। সেই অনুযায়ী দিনহাটা পুরসভার প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ রবিবার বেলা সাড়ে এগারোটা নাগাদ দিনহাটার বিভিন্ন স্তরের নাগরিকদের নিয়ে শহরের পাঁচ মাথার মোড় থেকে শুরু করে বিভিন্ন এলাকায় সাধারণ মানুষের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের নানাভাবে সচেতন করেন ।

এদিন প্রশাসক উদয়ন গুহ শহরের পাঁচ মাথার মোড়ে অযথা সাধারণ মানুষকে সচেতন করার সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে সুপার রঞ্জিত মন্ডল, আইএমএ দিনহাটা শাখার সম্পাদক ডা: বিদ্যুৎ কমল সাহা, ডা : উজ্জ্বল আচার্য, ডা: গৌতম গাঙ্গুলী, ডা: কে সি সাহা থেকে শুরু করে দিনহাটা মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রানা গোস্বামী, ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সম্পাদক উৎপলেন্দু রায়, পুরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলর গৌরীশংকর মাহেশ্বরী সহ অনেকেই।

আরও পড়ুন: আমফানে নন্দীগ্রামের প্রাচীন গৌবরময় স্কুলের ক্ষতি ৩০ লাখ, ঘুরে দাঁড়াতে হাত পেতে ভিক্ষে চাইছেন প্রধান শিক্ষক

এদিন শহরের পাঁচ মাথার মোড়ে বিধায়ক উদয়ন গুহ সহ অন্যান্যরা অযথা শহরে ভিড় করতে আসা মানুষদেরকে বাড়ি ফিরিয়ে দেন। এছাড়াও বিনা কারণে যারা শহরে ঢোকার চেষ্টা করছেন তাদেরকেও সতর্ক করে দেন। এদিন শহরের পাঁচ মাথার মোড় ছাড়াও পৌরসভা এলাকার বিভিন্ন স্থানে ব্যবসায়ীদেরকে নির্দিষ্ট সময় দোকান খোলা ও বন্ধের জন্য ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি পুরো প্রশাসকগণ নিজেই সকলকে সচেতন করে দেন। পাশাপাশি কোনভাবেই যাতে দোকানের সামনে মানুষের জমায়েত বেশি না থাকে তার জন্য ব্যবসায়ীদের বিশেষভাবে মনে করিয়ে দেন তিনি।

মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রানা গোস্বামী বলেন মানুষকে নানাভাবে সচেতন করা হচ্ছে স্থাপত্য অনেকেই বুঝতে পারছে না কত কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে চলছে বর্তমান সময়। তাই পুরসভা ও পুলিশ প্রশাসন কে সঙ্গে নিয়ে দিনহাটার মানুষকে বাঁচানোর জন্য নানাভাবে সচেতন করতে তারা মাঠে নামেন। হাট-বাজারগুলোতে যথেষ্ট ভিড় হচ্ছে। লকডাউন এর বিধি টা যাতে কঠিনভাবে মানা হয় তার জন্যই তারা সকলকে নিয়ে মাঠে নেমেছেন।

দিনহাটা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সম্পাদক উৎপলেন্দু রায় বলেন ইতিমধ্যে ৩৬ জন আক্রান্ত হয়েছে। আমরা তিনজনে থাকার সত্বেও এই ঘটনায় কনটেইনমেন্ট জোনে চলে এসেছি। সকলের স্বার্থে মানুষকে বাঁচাতে সকাল ৮ টা থেকে 12 টা পর্যন্ত ব্যবসার যে সিদ্ধান্ত তাকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য এবং হাট বাজারে ভিড় কমাতেই তারা সকলে মিলে মাঠে নেমেছেন।

পুরসভার প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন সাধারণ মানুষ যেভাবে অকারণে শহরে চলাফেরা করছে এবং হাট বাজারে ভিড় জমাচ্ছে তা রোধ করতেই সকলকে নিয়ে এদিন মানুষকে সচেতন করা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close