fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

গৃহবন্দি জীবনের একঘেঁয়েমি কাটাতে মন্তেশ্বর পুলিশের অভিনব উদ্যোগ

অভিষেক চৌধুরী,কালনা: লকডাউনের জেরে গৃহবন্দি জীবন যেন একঘেঁয়েমি হয়ে উঠেছে। তাই মনের অবস্থাটাও যে খুব ভালো তা নয়। তাই বাইরের জগৎ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া গুমরে থাকা শিশুমনকে আনন্দ দিতে ও বাড়ির অন্যান্য সদস্যদেরও তাদের নিয়ে ব্যস্ত রাখতে ঘরে বসেই প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নিল পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। আর এই কর্মকান্ডে প্রশংসনীয় সাড়া পাওয়ায় খুশি পুলিশমহল,খুশি শিশু ও তাদের অভিভাবকেরাও।

করোনার আতঙ্কে, লকডাউনের কারণে ঘরের মধ্যে আবদ্ধ প্রায় সকলেই। আর তার মধ্যেই বন্ধ হয়ে গেছে শিশুদের খোলামেলা পরিবেশের দুরন্তপনা জীবন।শুধু তাই নয় বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে কোথাও অংশগ্রহণও করতে পারছে না ছাত্রছাত্রীরা। স্বাভাবিক কারণেই তাদের প্রতিভার বিকাশও ব্যাহত হচ্ছে। এমনিই এক সময়ে লকডাউনের গৃহবন্দি জীবনের একঘেঁয়েমিকে কাটাতে সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ঘরে বসেই প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নিলেন পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বর থানার ওসি সৈকত মন্ডল।

প্রথম পর্যায়ে সব বয়সের মানুষজনকে ফেসবুক পেজ ও হোয়াটসঅ্যাপকে কাজে লাগিয়ে হয়ে গেল একটি অঙ্কন প্রতিযোগীতা। আর এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করেন হাজার খানেক প্রতিযোগী। এরপরেই সফল প্রতিযোগিদের থানায় ডেকে তাদের হাতে নজরকাড়া পুরষ্কারও তুলে দেয় পুলিশ।এই বিষয়ে অভিভাবক বাঘাসন ও মন্তেশ্বরের বাসিন্দা দেবাশীষ ঘোষ,লক্ষ্মীশ্রী চৌধুরীরা বলেন,‘পুলিশের এই উদ্যোগ ভীষণ প্রশংসনীয়। কারণ ছেলেমেয়েরা বাইরে খেলতে যেতেও পারছে না। তার উপর সারাবছর ধরে বিভিন্ন জায়গায় যে প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠান হয় তা বন্ধ থাকায় ওরা অংশগ্রহনও করতে পারছে না।তাই প্রতিভার বিকাশেও বাঁধা পড়ছে। এইরকম অবস্থায় মন্তেশ্বর পুলিশের ঘরে বসে প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা করা ভীষন ভালো।
এরফলে হারিয়ে যাওয়া আনন্দটা যেন ফিরে পাচ্ছে।’

ওসি সৈকত মন্ডল বলেন,‘জেলা জুড়ে বিভিন্ন থানা এলাকায় পুলিশ বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। ঘরে থেকে লকডাউনকে সফল করতে ও সকলকে ভালো রাখতে আমরাও চেষ্টা করছি।’

Related Articles

Back to top button
Close