fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আবহে রাখির বাজারে মন্দা দেখা দিয়েছে 

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা:   করোনা  ভাইরাসের প্রকোপ শুরু থেকেই  স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায়  ঘরবন্দী হয়ে পড়েছেন ছাত্রছাত্রীরা। কঠিন এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠান নানারকম নিয়ম মেনে চলছে। এমত অবস্থায় দিনহাটায় রাখি বন্ধন উৎসবকে ঘিরেও নানা উদ্যোগ থাকলেও আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলছে। করোনা মোকাবিলায় টানা লকডাউন চলছে। এবার শুরু হয়েছে পর্যায়ক্রমে কন্টেনমেন্ট জোন। এর ফলে হাট বাজার দোকান খোলা থাকার সময়সীমা বেঁধে দেওয়ায় বিভিন্ন অনুষ্ঠান যেমন অনেকটাই ফিকে হয়ে পড়েছে তেমনি রাখি বন্ধন উৎসব উপলক্ষে রাখির বাজার অনেকটাই মন্দা হয়ে পড়েছে। দাম অনেকটা বেশি হলেও হাতে গোনা কয়েকটি রাখি বিক্রি হচ্ছে। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলায় দিনহাটা  পুরসভা এলাকা এবং দিনহাটা দুই ব্লককে কন্টেনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও দিনহাটা ব্লকের বেশ কিছু এলাকা কন্টেনমেন্ট জোনের আওতায় রয়েছে। ফলে দোকান বাজার খোলার নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

[আরও পড়ুন- মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস, পিপিই কিট ব্যবহারের পর যত্রতত্র পড়ে রয়েছে]

শনিবার রাখি কিনতে বাবা বরুণ মজুমদার এর সাথে আসে মেয়ে সৃজিতা মজুমদার। রাখির পাশাপাশি ভাইকে দেওয়ার জন্য কেনেন মাস্ক। সৃজিতা বলে  কয়েক মাস পরে এদিন  বাইরে বের হয়েছে। ভাইকে সুরক্ষিত রাখতে করোনা আবহে কেনে মাস্ক ও স্যানিটাইজার।

দিনহাটা শহরের ব্যবসায়ীদের তপন সাহা, বিমল সাহা জানান  করোনা আবহে এবার স্কুল, কলেজ বন্ধ থাকায় রাখির বাজার খুব খারাপ। খুব প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। তা সত্ত্বেও হাতেগোনা কয়েকজন রাখি কিনতে আসছেন। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলায়  কন্টেনমেন্ট জোনে খুব কম সংখ্যক মানুষই ঘর থেকে বের হওয়ার  ফলে চার ঘন্টা এই সময়সীমার মধ্যে হাতেগোনা কয়েকজন গ্রাহক আসছেন রাখি কিনতে। এর ফলে রাখি বিক্রিও কমে গেছে। চওড়াহাট এলাকার আরেক ব্যবসায়ী বলেন কঠিন এই সময় কালে নিত্যনতুন রাখি তারা বিক্রি করতে পারছেন না।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close