fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

করোনা চিকিৎসায় ব্রিটেনের নতুন ওষুধে সাফল্যের দাবি

লন্ডন, (সংবাদ সংস্থা): ব্রিটেনের বায়োটেক কোম্পানি সিনাইরজেন ‘ইন্টারফেরন বেটা’ নামের প্রোটিন ব্যবহার করে করোনার যে চিকিৎসাপদ্ধতি তৈরি করেছে, তা করোনা আক্রান্তদের হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তির প্রয়োজনীয়তা কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে বলে প্রাথমিক ফলাফলে জানা যাচ্ছে।
মূলত, মানবদেহে ভাইরাস সংক্রমণ হলে তার বিরুদ্ধে ‘ইন্টারফেরন বেটা’ নামের এক ধরনের প্রোটিন স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেহে তৈরি হয়। সেই ‘ইন্টারফেরন বেটা’ ব্যবহার করেই ‘এসএনজি০০১’ নামের একটি ওষুধ তৈরি করেছে সিনাইরজেন। এই ওষুধ বা প্রোটিন  নেবুলাইজার ব্যবহার করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের ফুসফুসে সরাসরি প্রয়োগ করা হয়। এর ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে আশাবাদী বিজ্ঞানীরা।
সূত্রের খবর, ব্রিটেনের ৯টি হাসপাতালে ভর্তি ১০১ জন করোনা আক্রান্ত স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে নতুন এই চিকিৎসাপদ্ধতি প্রয়োগ করে সিনাইরজেন। প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, সিনাইরজেনের ‘এসএনজি০০১’ ওষুধটি হাসপাতালে ভর্তি করোনা আক্রান্তদের শরীরে রোগটি গুরুতর হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে সাহায্য করেছে। হাসপাতালে ‘প্ল্যাসেবো’ গ্রুপের তুলনায় যাদেরকে সিনাইরজেনের এই ওষুধ প্রয়োগ করা হয়েছিল তাদের করোনা গুরুতর হওয়ার ঝুঁকি ৭৯ শতাংশ কম ছিল। শুধু তাই নয়, হাসপাতালে প্ল্যাসেবো প্রাপ্ত রোগীদের তুলনায় ‘এসএনজি০০১’ দেয়া রোগীরা দ্বিগুণের চেয়ে বেশি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সিনাইরজেন বলছে, তাদের ওষুধটি করোনা রোগীদের শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যাও ‘অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য’ পরিমাণে হ্রাস করে। এছাড়া ‘এসএনজি০০১’ করোনা রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি থাকার সময়ও এক তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনে। অর্থাৎ নতুন এই ওষুধটি যাদের ওপর প্রয়োগ করা হয়েছিল তাদের হাসপাতালে ভর্তি থাকার সময় গড়ে ৯ থেকে ৬ দিনে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। তবে ব্রিটিশ এই কোম্পানির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ফল এখন পর্যন্ত পির রিভিউড কোনও সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়নি। এছাড়া কোম্পানিটিও এ বিষয়ে বিস্তারিত কোনও তথ্য এখনও প্রকাশ করেনি।
তবে সিনাইরজেনের এই দাবি যদি সত্যি হয়, তাহলে করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এক পদক্ষেপ হতে যাচ্ছে। সিনাইরজেনের গবেষণা কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানী টম উইলকিনসন বলেছেন, বৃহৎ পরিসরের গবেষণায় যদি এই ফলাফলের সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়, তাহলে করোনার চিকিৎসায় এটি যুগান্তকারী ‘গেইম চেঞ্জার’ হতে পারে। কোম্পানির প্রধান নির্বাহী রিচার্ড মার্সডেন বলেছেন, ‘আমরা এর চেয়ে ভালো ফলাফল আশা করতে পারি না। হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় এটি বড় ধরনের সাফল্য।’ একইসঙ্গে, মার্সডেন বলেছেন, ‘সিনাইরজেন কোম্পানি আগামী কয়েকদিনের মধ্যে গবেষণার প্রাপ্ত ফল বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চিকিৎসা নিয়ন্ত্রক সংগঠন ও কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেবে। এতে এই চিকিৎসাপদ্ধতির অনুমোদনের জন্য আর কি কি তথ্য দরকার তা জানতে চাওয়া হবে।’

Related Articles

Back to top button
Close