fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

রেকর্ড করে দেশে এক লক্ষের পথে করোনায় দৈনিক সংক্রমণ, বাড়ল মৃত্যুর হারও

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: এক সপ্তাহ ধরেই দৈনিক সংক্রমণ লাগামছাড়া। নতুন সংক্রমণ ধরা পড়ছে প্রায় ৮০ থেকে ৯০ হাজারের কাছাকাছি। মাঝে দু’একদিন দৈনিক সংক্রমণের হার কমলেও আজ এক ধাক্কায় ফের সংক্রমণের হার উর্ধ্বমুখী। সংক্রমণে মৃতের সংখ্যাও বেড়েছে। মোট সংক্রমণে বিশ্ব-তালিকার দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসে ভারত। ভারতের ঠিক উপরেই রয়েছে আমেরিকা। এ ছাড়াও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া তথ্য বলছে, একদিনের সর্বাধিক সংক্রমণের নিরিখে বিশ্বে প্রায় এক মাস ধরে শীর্ষে রয়েছে ভারত।

বৃহস্পতিবার সকালে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৯৫ হাজার ৭৩৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যা গতকালের থেকে প্রায় ৭ হাজার বেশি। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৪ লক্ষ ৬৫ হাজার ৮৬৪ জন। আমেরিকা এবং ব্রাজিল দুই দেশের থেকেই ভারতের দৈনিক সংক্রমণ কয়েক গুণ বেশি। আক্রান্তের সংখ্যা ফের বাড়লেও সুস্থতার সংখ্যাটা খানিকটা স্বস্তি দিচ্ছে। পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার কবল থেকে মুক্তি পেয়েছেন ৭২ হাজারের বেশি মানুষ। ফলে দেশে মোট করোনাজয়ীর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ লক্ষ ৭১ হাজার ৭৮৪ জনে।

এদিকে মৃতের সংখ্যাতেও গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বরেকর্ড করে ফেলেছে ভারত। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ১৭২ জনের। যা বিশ্বের অন্যান্য দেশের থেকে অনেক বেশি। ফলে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৭৫ হাজার ৬২ জন। মোট মৃতের সংখ্যার নিরিখে এই মুহূর্তে বিশ্বে তৃতীয় ভারত। তবে মৃতের সংখ্যাটা বাড়লেও দেশের মৃত্যুহার এখনও কমের দিকেই।

আরও পড়ুন: অধীরেই আস্থা রাখলো কংগ্রেস, ফিরলেন পুরনো মসনদে

সরকারি পরিসংখ্যান বলছে, গত দু’সপ্তাহে দেশে ১০ লক্ষের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তবে, এটাও ঠিক যে পরীক্ষার সংখ্যাও বাড়ছে হু হু করে। গত কয়েকদিনে তো দৈনিক টেস্টের সংখ্যা ১১ লক্ষ ছাপিয়ে গিয়েছে।  ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)-এর হিসেবে ১১ লক্ষ ২৯ হাজার ৭৫৬। এ যাবত্‍ পাঁচ কোটির বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে দেশজুড়েই। দেশে কোভিড টেস্টের ল্যাবরেটরির সংখ্যা আরও বেড়েছে। মোট ১৬৮৬টি ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে যার মধ্যে সরকারি ল্যাবরেটরি ১০৪২টি ও বেসরকারি ল্যাব রয়েছে ৬৪৪টি। তবুও, মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ুর মতো কিছু রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগে রেখেছে বিশেষজ্ঞদের। এদিকে, দিল্লিতে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ার পর ফের বাড়তে শুরু করেছে সংক্রমণ।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close