fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

করোনা আবহে জীবনযাত্রা স্বাভাবিক করে দিলে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে, সতর্কবার্তা WHO-এর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা আবহে রাতারাতি জীবনযাত্রা স্বাভাবিক করে দিলে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে। সতর্ক করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা হু। উল্লেখ্য, আজ থেকে ভারত যখন ভারত যেদিন আনলকের চতুর্থ পর্যায়ে পা রাখছে, ঠিক তার একদিন আগেই তাড়াহুড়ো করে লকডাউন তোলা নিয়ে সতর্ক করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর-জেনারেল টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস বলেন, “দ্রুত জীবনযাত্রা স্বাভাবিক করে দেওয়ার প্রক্রিয়া বিপর্যয় এনে দিতে পারে। যে সমস্ত দেশ এই ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে শুধু তারাই জীবনযাত্রা স্বাভাবিক করার পথে হাঁটতে পারে।” WHO’র ডিরেক্টর-জেনারেল বলছেন, যারা সত্যিই সবকিছু স্বাভাবিক করতে চাই, তাদের সংক্রমণ কমানোর ইচ্ছেটাও থাকতে হবে। হয়তো মনে হচ্ছে, দুই দিক মিলিয়ে চলাটা অসম্ভব। কিন্তু তেমনটা নয়। টেড্রোসের কথায়, ‘আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে, আমরা ভাইরাসটিকে ছড়াতে সাহায্য করছি না।

                      আরও পড়ুন: ফোটো ফিচার…ব্রহ্মের শব্দ প্রতীক: প্রণব

যাদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, তাঁদের রক্ষা করতে হবে। চূড়ান্ত নজরদারি’ প্রয়োজন। কারণ সংক্রমণের ‘ক্লাস্টার’গুলি যদি থেকে যায়, তাহলে রোগটি নিচুতলায় চলতেই থাকবে। তাই আরও বেশি বেশি টেস্ট, সনাক্তকরণ এবং আইসলেশন প্রয়োজন।’

আরও পড়ুন: ‘করোনাবিধি মেনেই প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির সম্পন্ন হবে শেষকৃত্য’, শেষ শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রী, উপরাষ্ট্রপতির 

WHO আগেই জানিয়েছিল, লকডাউন তুলতে হলে প্রয়োজন ‘চূড়ান্ত নজরদারি’। বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ার পর সাবধানতা অবলম্বন না করলে ফের দ্রুত গতিতে ছড়াতে পারে করোনা ভাইরাস। কিন্তু সম্প্রতি দেখা গিয়েছে, ইটালি-সহ গোটা ইউরোপেই আগের তুলনায় করোনার প্রভাব খানিকটা কম। এবং সেকারণেই গোটা ইউরোপ ধীরে ধীরে লকডাউন তুলে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চাইছে। বেশ কিছু দেশে সেই প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close