fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

নতুন সংক্রমণের ধাক্কা একদিনে দেশে আক্রান্ত ২৫ হাজারের বেশি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতে আনলকের দ্বিতীয় পর্বে হু হু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ।সময় যত গড়াচ্ছে ততই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। কার্যত করোনার ‘লাগামছাড়া’ দাপটে কাঁপছে দেশ। বুধবার রাত পর্যন্ত মারণ ভাইরাসে দেশে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২৫ হাজারের বেশি মানুষ। প্রাণ ঝরেছে ৪৯১ জনের। দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ লক্ষ ৬৭ হাজার ৯৭৭ জনে। আর প্রাণ ঝরেছে ২১ হাজার ১৩৩ জনের। এই নিয়ে টানা সাতদিন দেশে নতুন করে সংক্রামিতের সংখ্যা ২০ হাজারের গণ্ডি পেরিয়ে গেল। সক্রিয় করোনা রুগীর সংখ্যা ২ লাখ ৭০ হাজারের উপরে।

দেশের মধ্যে সবচেয়ে শোচনীয় অবস্থা মহারাষ্ট্রের। সংক্রমণ আর মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বের একের পর এক রেকর্ড গড়ছে উদ্ধব ঠাকরের রাজ্য। গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ৬ হাজার ৬০৩ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ২৩ হাজার ৭২৪ জনে। এদিনই সংক্রমণের নিরিখে সৌদি আরবকে টপকে গিয়েছে মরাঠা রাজ্য। নতুন করে আরও প্রাণ হারিয়েছেন ১৯৮ জন। যার ফলে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৪৪৮ জনে। মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বে দ্বাদশতম স্থানে থাকা জার্মানিকেও টপকে গিয়েছে উদ্ধবের রাজ্য।

কর্নাটকেও পরিস্থিতির ক্রমশই অবনতি ঘটছে। গত ২৪ ঘন্টায় বিজেপি শাসিত রাজ্যে একদিনে সংক্রমণের নয়া রেকর্ড তৈরি হয়েছে। ২,০৬২ জন নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন। যার ফলে মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২৮ হাজার ৮৭৭ জনে। একদিনেই প্রাণ হারিয়েছেন ৫৪ জন। ফলে মৃতের সংখ্যা একলাফে বেড়ে হয়েছে ৪৭০। তেলেঙ্গানাতেও সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে একদিনেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দুই হাজারের গণ্ডি ছুঁয়েছে। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৯২৪ জন। কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের রাজ্যে এ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত হলেন ২৯ হাজার ৫৩৬ জন। মারণ ভাইরাসে আরও ১১ জন প্রাণ হারানোয় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২৪ জনে।

আরও পড়ুন: করোনা আবহে আজ বিশ্ববাসীর উদ্দেশে ভাষণ মোদির

রাজধানী দিল্লিতে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে দুই হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৪ হাজার ৮৬৪ জনে। মৃত্যুর কোলে আরও ৪৮ জন ঢলে পড়ায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩ হাজার ২১৩ জনে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য বলছে, ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল মিলিয়ে দেশে কোভিড রিকভারি রেট ৬১.৫৩%। দিল্লি, গুজরাট, উত্তরপ্রদেশেও ধীরে ধীরে সুস্থতার হার বাড়ছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে কোভিড টেস্টিং। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে দিনে গড়ে আড়াই লাখের বেশি কোভিড টেস্ট হচ্ছে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)-এর হিসেবে গতকালই দেশে মোট কোভিড টেস্টিং হয়েছে ২ লাখ ৬২ হাজার ৬৭৯। সংক্রমণ ঠেকাতে তিন ‘টি’ অর্থাত্‍ টেস্টিং (Testing), ট্রেসিং (Tracing) এবং চিকিত্‍সা অর্থাত্‍ ট্রিটমেন্ট(Treatment)-এর উপর জোর দিয়েছে আইসিএমআর। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, গোষ্ঠীস্তরে সংক্রমণ এখনও ছড়ায়নি। তবে আক্রান্তদের থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া আটকাতে এবং সংক্রামিতদের আলাদা করে দ্রুত চিকিত্‍সা শুরু করতে এই তিন ‘টি’-এর ফর্মুলাই কাজে আসবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close