fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফের প্রকাশ্য করোনা-দুর্নীতি! ভুয়ো রিপোর্ট দেখিয়ে মৃতের পরিবার থেকে বিল আদায়, কাঠগড়ায় বেসরকারি হাসপাতাল

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়,কলকাতা: ভুয়ো করোনা রিপোর্ট দেখিয়ে মোটা অঙ্কের বিল জোর করে মিটিয়ে নেওয়া এবং তারপরে ভেন্টিলেশনে রাখা পুরনো মৃতদেহ পরিবারকে দেওয়ার অভিযোগ উঠল তিলজলার এক নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার রাতে এই নিয়ে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়ায় স্বস্তিকা সেবা সদন নামে ওই নার্সিংহোমে। নার্সিংহোমের  বিরুদ্ধে কড়েয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করে রোগীর পরিবার। রোগী আদৌ করোনা আক্রান্ত ছিলেন কি না, তা জানতে মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে দেহের ময়নাতদন্ত করার দাবি জানানো হয়েছে। অন্যদিকে, সব জানানও  সত্ত্বেও রোগীর পরিবারের বিরুদ্ধেও উশৃঙ্খলতার অভিযোগ দায়ের করেছেন নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ।

পরিবার সূত্রে খবর, হুগলির চণ্ডীতলার ওই বাসিন্দা সবর আলিকে ২৫ আগস্ট ভর্তি করানো হয় তিলজলা রোডের বেসরকারি নার্সিংহোম স্বস্তিকা সেবা সদনে। ভর্তির পরের দিনই ২৬ আগস্ট নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ রোগীর পরিবারকে জানায় যে,চিকিৎসাধীন ওই রোগী করোনা আক্রান্ত। তাদের একটি রিপোর্টও দেখানো হয়।
পরে ধাপে ধাপে প্রথমে রোগীকে আইসিইউ এবং পরে ভেন্টিলেশনে পাঠানো হয়। আর তার সঙ্গে সঙ্গে চড়চড় করে বাড়তে থাকে নার্সিংহোমের বিল।

পরিবারের দাবি, তাদের সন্দেহ হওয়ায় তাঁরা রুবি হাসপাতালে সবর আলিকে স্থানান্তরিত করার জন্য ব্যবস্থা করেন। কিন্তু অভিযোগ, ওই কথা নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষকে জানাতেই সোমবার ৩১ আগস্ট স্বস্তিকা নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ রোগীর পরিবারকে বলে যে সমস্ত বকেয়া টাকা না মেটানো পর্যন্ত রোগীকে নামিয়ে অ্যাম্বুল্যান্সে দেওয়া হবে না। এরপর তারা অনলাইনে সমস্ত টাকাই মিটিয়ে দেন।

কিন্তু দেহ হস্তান্তরের সময়ে আচমকাই হাবভাব পালটে যায় হাসপাতাল কর্মীদের। রোগীর পরিবারকে জানানো হয়, যে সময় তারা বিল মেটাচ্ছিলেন, সেই সময় মারা গিয়েছেন ওই রোগী। এই খবর শুনে রীতিমত চমকে যান সবর আলির পরিবার। দেহ হাতে পাওয়ার পর পরিবারের অভিযোগ, অন্তত দু-তিন দিন আগেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। বিল বাড়ানোর জন্য তাঁকে এভাবে ভেন্টিলেশনে রেখে দেওয়া হয়েছিল। রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে একবারও জানাল না হাসপাতাল? একই সঙ্গে তাঁদের আরও অভিযোগ, করোনার রিপোর্টও সঠিক নয়। সেটাও নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের বিল বাড়ানোর ছক ছিল। ময়না তদন্ত করলেই আসল সত্য বেরিয়ে আসবে। রাতেই ঘটনাস্থলের পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ঘটনা তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। পাশাপাশি বিষয়টি জানানো হয়েছে স্বাস্থ্য কমিশনকেও।

Related Articles

Back to top button
Close