fbpx
কলকাতাহেডলাইন

মানিব্যাগে ভরে তো আর গরু পাচার হয়নি! তৃণমূল ও পুলিশকে নিয়ে বিস্ফোরক অধীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: বাংলায় গরু পাচার রাজ্য পুলিশ ও শাসকদলের মদত ছাড়া হতে পারে না। ফেসবুক পোস্টে এই ভাষাতেই আক্রমণ শানালেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, গরু পাচারের টাকায় তৃণমূল নেতার নির্বাচনী তহবিল এবং পুলিশের ম্যানিব্যাগ ভরেছে। বুধবার দিল্লি, কলকাতা, শিলিগুড়ি, অমৃতসর, ছত্তিশগড়, গাজিয়াবাদ-সহ ১৫টি জায়গায় হানা দিয়েছেন তদন্তকারীরা। সেই ঘটনা নিয়েই এবার শুরু হয়েছে রাজনৈতিক টানাপোড়েন। গরুপাচার ইস্যুতে ফেসবুকে রাজ্য সরকারকে বিঁধেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরি।

তিনি লেখেন, ‘বাংলার গরু পাচার রাজ্যের পুলিশ ও শাসকদলের মদত ছাড়া হতে পারে না। BSF লুঠ করেছে বর্ডারে, গরু এসেছে ট্রাক ভরতি হয়ে জাতীয় ও রাজ্য সড়ক দিয়ে। মানি ব্যাগে ভরে তো গরু পাচার হয়নি! বরং গরু পাচারের টাকা তৃণমূলের নেতার নির্বাচনী তহবিল আর পুলিশের মানি ব্যাগ ভরিয়েছে। তৃণমূল নেতারা কত করে মাসোহারা পেত সেই রেট পুলিশ যেমন জানে তেমন পাবলিকও জানে। মুর্শিদাবাদে এটা ওপেন টু অল, যারা ক্ষমতায় থাকে পাচারকারীদের কাছে তাদের কদর। কলকাতা পুলিশ হেড কোয়ার্টার থেকে ‘দিদি’র দলের ভবিষ্যত্‍, তাদের জন্য টাকার পাহাড় তৈরিতে গরুপাচার বিরাট ভূমিকা পালন করেছে।’

গরু পাচারে বিএসএফ এবং জামাত যোগের অভিযোগ নিয়ে বুধবার রাজ্যের ১৫ টি জায়গায় তল্লাশি চালায় সিবিআই। সল্টলেকে এক বিএসএফ কর্তা সতীশ কুমারের বাড়ি সিল করে দেয় সিবিআই। ব্যবসায়ী ইনামুল হকের সন্ধানে তল্লাশি চালাচ্ছে সিবিআই। সীমান্ত এলাকার একাধিক নেতাও এই গরু পাচারে যুক্ত রয়েছে বলে অভিযোগ কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার।

আরও পড়ুন: ভোটের টাকা তুলতে প্রধানমন্ত্রী কিষাণ যোজনার টাকা চাইছেন দিদি, রাজ্যজুড়ে প্রচারে নামছে বঙ্গবিজেপি

উল্লেখ্য, বুধবার দিনভর দেশজুড়ে সিবিআইয়ের (CBI) তল্লাশি হল সেই গরুপাচারের ‘খুঁটি’তে টান দিতেই। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, ওই খুঁটিতে বেশ কয়েকজন বিএসএফ ও কাস্টমস অফিসার তো বটেই, মালদহ-মুর্শিদাবাদের সীমান্তের একাধিক নেতাও বাঁধা। গরুপাচার ঘিরেই বছরে কয়েকশো কোটি টাকার লেনদেন হয় দুই দিনাজপুর, মালদহ, মুর্শিদাবাদ, নদিয়া বা উত্তর ২৪ পরগনার মতো জেলাগুলির এক একটিতেই। তা যে স্থানীয় নেতা, বিএসএফ, কাস্টমসের একাংশের বদান্যতা ছাড়া চলতে পারে না তা স্পষ্ট এবং যা নিয়ে বছর কয়েক আগে তপ্ত হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি, যখন মুর্শিদাবাদের সুতির বিধায়ক চিঠি লিখেছিলেন এ নিয়ে।

 

Related Articles

Back to top button
Close