fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পরিযায়ী শ্রমিকদের রেশন ও কাজের দাবিতে সিপিএমের ডেপুটেশন

মিলন পণ্ডা, মারিশদা: গ্রাম পঞ্চায়েতের একাধিক দূর্নীতি ও স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলে বিডিওকে অফিসের তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ দেখালেন বামফ্রন্ট কর্মী-সমর্থকরা। প্রায় আড়াই ঘণ্টা গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ দেখায় সিপিএমের কর্মী-সমর্থকরা। অবরোধের জেরে পঞ্চায়েত অফিসে কোন কর্মী অফিসে ঢুকতেই পারেনি। বিক্ষোভ চলাকালীন পঞ্চায়েত সমিতির জনস্বাস্থ্য কর্মধক্ষ শ্যামল দাস তিনি অফিসে ঢুকতে গেলে তাকে বাধা দেওয়া হয় অবশেষে বাধ্য হয়ে ফিরে যান। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসে মারিশদা থানার ওসি অমিত দেবের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী। পুলিশ ও বিডিও কাছ থেকে আশ্বাস পেয়ে বিক্ষোভ তুলে বামফ্রন্টের কর্মী-সমর্থকরা। তাদের অভিযোগ আমফানে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে সরকার।পরিযায়ী শ্রমিকদের পরিবার সবাই এখনো ফুড কুপন পাইনি। পঞ্চায়েতে দুর্নীতি ও আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের স্বজনপোষণ বন্ধ করতে হবে। পাকার বাড়ি মালিক যে ক্ষতিপূরণের যারঅ টাকা পেয়েছেন তাদের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করতে হবে। এরপর সিপিএমের পক্ষ থেকে তিনজনের প্রতিনিধিদল একটি বিডিওর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন।উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী চক্রধর মেককাপ, কালিপদ শীট, ঝাড়েশ্বর বেরা, প্রতাপ দাস প্রমুখ্য।

সিপিএম নেতা ঝাড়েশ্বর বেরা বলেন ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদানের ক্ষেত্রে ব্লক এলাকায় চুড়ান্ত দুর্নীতি ও স্বজন পোষন হয়েছে।এমন কি পরিযায়ী শ্রমিক রা সরকারী ঘোষনা মতো রেশন পরিষেবা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

বিক্ষোভকারীদের দাবিমতো আগামী সাত দিনের মধ্যে ব্লকে সর্বদলীয় সভা ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের আর্থিক সাহায্য পাওয়ার তালিকা ব্লকে প্রকাশের ব্যবস্থা করবেন। পরিযায়ী শ্রমিকদের খাদ্যশস্য প্রদানের ফর্ম জমা দিলে তার ব্যবস্থা করবেন আশ্বাস দিলে বিক্ষোভ ও অবস্থান তুলে নেওয়া হয়।

Related Articles

Back to top button
Close