fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিমল আমার চোখে ফেরার আসামী’, পাহাড় রাজনীতিতে বিমলকে পাত্তা দিতে নারাজ বিনয়

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা:  বিধানসভা ভোটের আগে পাহাড়ের অশান্ত রাজনীতির আঁচ ঠান্ডা রাখতে বিমল গুরুংকে কিছুদিন আগেই ডেকে কথা বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর মঙ্গলবার তাদের বিরোধী দল বিনয় তামাং এবং অনীত থাপাকেও নবান্নে ডেকে পাঠান মুখ্যমন্ত্রী। বৈঠকের আগেই গোর্খা ভবনে বিমল গুরুংকে অপ্রাসঙ্গিক বলে দাবি করেছিলেন বিনয় তামাং। বৈঠক শেষে পাহাড়ের উন্নয়ন ও শান্তিশৃঙ্খলার প্রশ্নে তৃণমূল সরকারকে সমর্থন জানালেও বিমল গুরুংকে যে তিনি কোনওরকম পাত্তা দিতে নারাজ, তা স্পষ্ট করে দিলেন বিনয় তামাং।

গোর্খাল্যান্ড টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (জিটিএ) প্রধান বিনয় তামাং ও অনীত থাপার সঙ্গে মঙ্গলবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠক ছিল। সেখানে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বিমল গুরুং নিয়ে প্রশ্নের জবাবে বিনয় বলেন, পাহাড়ের উন্নয়ন, সেখানকার শান্তিশৃঙ্খলা নিয়ে কথা হয়েছে।
পাহাড়ে ফের পর্যটকদের ভিড় হলে এই কোভিড পরিস্থিতিতে তাঁদের কী ভাবে সুরক্ষিত রাখা যায়, তার পরিকল্পনা নিয়ে কথা হয়েছে।
বিমল গুরুং আলোচনার কোনও বিষয়ই ছিলেন না।’

এর পরেই তিনি কার্যত উপেক্ষার সুরে বলেন, ”বিমল গুরুং কে? বিমল গুরুং আইনের চোখে এক জন ফেরার অভিযুক্ত। আমি আগেও বলেছি, এখনও বলছি, আমরা বিমল গুরুং-রোশন গিরি বা তাঁদের শিবিরের সঙ্গে কোনও ভাবে রাজনৈতিক বা প্রশাসনির ক্ষমতা এমনকি মঞ্চও ভাগাভাগি করতে রাজি নই। অতীত কেন, ভবিষ্যতেও আমরা বিমলের সঙ্গে কোনও রকম সমঝোতায় যাব না।’

প্রসঙ্গত, রাজ্য প্রশাসনের বরাবরেই চেষ্টা ছিল, বিমল গুরুং এবং বিনয় তামাংকে মিলিয়ে দিয়ে পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে আনা। কিন্তু বিমল গুরুংকে কার্যত অপ্রাসঙ্গিক অ্যাখা দিয়ে বিমল পাহাড়ে ঢুকলে অশান্তির আগুন জ্বলবে এবং তাতে ক্ষতি হবে রাজ্য প্রশাসনেরই। তাই পাহাড়ে শান্তি দেখতে হলে বিমলকে সঙ্গে নিয়ে চলার চেষ্টা তারা বিন্দুমাত্র করবেন না, এমনটাই তারা এদিনের নবান্নে বৈঠক এবং পরবর্তী সাংবাদিক সম্মেলনে স্পষ্ট করে দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close