fbpx
হেডলাইন

দিনের পর দিন ধরে নাবালিকা ছাত্রীকে গণধর্ষণ, উত্তপ্ত বারাসত

শ্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: জন্ম সার্টিফিকেট ঠিক করে দেওয়ার নামে ছাত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল। বারাসাত পুরসভা ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড সুভাষ পল্লী এলাকার ঘটনা। এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে ওপর অভিযুক্ত পলাতক। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম হল বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস। অপর জনের নাম জানা যায়নি।

নির্যাতিতার পরিবার জানিয়েছে, একদিন রাতে ঐ ছাত্রী দেরী করে বাড়িতে ফিরলে, বাড়ির লোক জানতে চায় কেন এত দেরী। তখন ওই নাবালিকা মেয়েটি খুলে বলে গৃহশিক্ষক ও তার সাগরেদ কীভাবে তাকে ব্ল্যাকমেল করে ধর্ষণ করত। এদিকে এই ঘটনার কথা জানাজানি হতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকাবাসী। অভিযুক্ত ঐ গৃহ শিক্ষকের বাড়িতে চড়াও হয় । এরপর তাকে বাড়ি থেকে বের করে এনে দেওয়া হয় উত্তম মধ্যম। ক্ষুব্ধ জনতা ভাঙচূড় চালায় অভিযুক্ত গৃহ শিক্ষক বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস বাড়িতে। পরে পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে গৃহ শিক্ষককে। শুক্রবার রাতেই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

আরও পড়ুন: শিখের পাগড়ি খোলার ঘটনায় পুলিশ কর্মীরা কঠোর শাস্তির দাবি পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী, নিন্দা সুখবীর সিং বাদলের

এদিন নির্যাতিতা নাবালিকা পুলিশকে জানিয়েছে, তাঁর জন্ম সার্টিফিকেট ভুল সংশোধনের নাম করে বেশ কয়েক দিন ধরে ঐ গৃহশিক্ষক ও তাঁর বন্ধু তাঁর উপর অত্যাচার করছিল। অত্যাচারের ছবি ক্যামেরাবন্দী করে ব্ল্যাকমেল করত। পাড়ার কাছে চিকেন মোড়ে একটি বাড়িতে তারা তাকে নিয়ে যেত সেখানে তাকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করত শিক্ষক ও তার বন্ধু মিলে। এই দিন বাড়ির লোকের কাছে ঘটনার কথা খুলে বলায় পর এলাকার মানুষজন রোষে ফেটে পড়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের উপর। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। জনরোষের হাত থেক উদ্ধার করে অভিযুক্ত গৃহ শিক্ষক বিপুল চন্দ্র বিশ্বাসকে।

আরও পড়ুন: আর্থিক প্রতারণা মামলায় গ্রেফতার ভাইপো, ‘তৃণমূল মিথ্যে মামলায় ফাঁসাচ্ছে’, দাবি অর্জুন সিং-এর

এদিকে এই অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতারের পরই তাঁর স্ত্রী দাবি, তাঁর স্বামীকে ফাঁসানো হয়েছে। তাঁর আরও দাবি, স্বামী বিপুল চন্দ্র এলাকায় বিজেপি পার্টির কর্মী। আর সেই অপরাধে এক নাবালিকাকে দিয়ে মিথ্যা মামলা সাজিয়েছে শাসক দল। অন্যদিকে বারাসত পুরসভার ৩৩ নং ওয়ার্ডে তৃণমূলের আহ্বায়ক মিলন সর্দার বলেন, অভিযুক্ত বিজেপি করে বলেই ছাত্রীর সঙ্গে এমন জঘন্য কাজ করতে পারে। ওটা ওদের সংস্কৃতি। এলাকার লোক জানে বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস কী করেছে। ওই রাতেই পুলিশ আর এক অভিযুক্তকে ধরার জন্য গোটা এলাকা তল্লাশি শুরু করেছে।

Related Articles

Back to top button
Close