fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

পুলিশের অমানবিক অত্যাচারে বিজেপি কর্মীর মৃত্যু, চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রীকে অভিযোগ রাজ্যপালের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজভবন নবান্নের তিক্ততা অব্যাহত। শনিবার বলবিন্দারের অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে টুইট করে তোপ দেগেছিলেন রাজ্যপাল। রবিবার মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখে পটাশপুরের বিজেপি কর্মী মদন ঘোড়ইয়ের মৃত্যু নিয়ে সরব হলেন তিনি। বিজেপির এই কর্মীর উপর অমানবিক অত্যাচার হয়েছে বলেও অভিযোগ করলেন সাংবিধানিক প্রধান। একইসঙ্গে টুইট করে রাজ্যপাল লিখেছেন, ‘ জেল হেফাজতে থাকাকালীন মদন ঘোড়ইয়ের মৃত্যু আর একটি ভয়ঙ্কর ঘটনা। ‘

 

একইসঙ্গে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে সংবিধান অনুযায়ী চলার আর্জিও রেখেছেন। চিঠিতে রাজ্য পুলিশের ডিজি, কলকাতা পুলিশকে ট্যাগ করে আইপিএস, আইএসদের রাজনীতি গতমাসে নিরপেক্ষ থাকতে বলেছেন। তিনি অভিযোগ করেছেন এটা এখন খোলা চোখে দেখা যাচ্ছে পুলিশের রাজনীতিকরণ হয়ে গিয়েছে। রাজ্যপাল এদিনও চিঠিতে অভিযোগ করেছেন বলবিন্দার সিংয়ের ঘটনায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার পরও প্রশাসন শিক্ষা নেয়নি। ধারাবাহিকভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন,রাজনৈতিক হিংসা, জেল হেফাজতে অত্যাচারের ঘটনা ঘটেই চলেছে। আশ্চর্যের বিষয় দোষি পুলিশ আধিকারিকদের কোন শাস্তি হচ্ছে না।

প্রসঙ্গত জেলবন্দি থাকাকালীন অসুস্থ হয়ে বিজেপি কর্মী ঘড়াইয়ের মৃত্যুর ঘটনার জল গড়ায় হাইকোর্ট পর্যন্ত। শুধু তাই নয় এই ঘটনায় দ্বিতীয়বার মদন ঘড়াইয়ের দেহের ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের আগেই মদন ঘড়াইয়ের মরদেহ রাজ্য বিজেপি দফতরে আনা হয়। সেখানে শ্রদ্ধা ঞ্জাপনের পরে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মরদেহ নিয়ে শোকমিছিল বেরোয়। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ে পুলিশ মিছিল আটকায়। তখন হুগলির সাংসদের নেতৃত্বে রাস্তার উপরেই বিজেপি কর্মীরা বসে পড়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত অবশ্য পুলিশি হস্তক্ষেপে অবরোধ উঠে যায়।

রাজ্যপাল চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রীকে সরাসরি লিখেছেন, সময় হয়েছে আপনার সাংবিধানিক শপথ পালন করে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে রাজ্যে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার। পুলিশ ও প্রশাসনকে রাজনীতি নিরপেক্ষ হতে বলুন।

Related Articles

Back to top button
Close