fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আক্রান্ত হয়ে আসানসোল জেলা হাসপাতালের ল্যাব টেকনিশিয়ানের অকালমৃত্যু

শুভেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়, আসানসোল: করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল আসানসোল জেলা হাসপাতালের ল্যাব টেকনিশিয়ানের। কলকাতার মেডিক্যাল কলেজে রবিবার ভোর রাত তিনটে নাগাদ মৃত্যু হয় আসানসোল জেলা হাসপাতালের প্যাথোলজি বিভাগের ল্যাব টেকনিশিয়ান বৃন্দাবন মন্ডলের। বয়স ছিল ৪২ বছর। সহকর্মীর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স থেকে স্বাস্থ্যকর্মীরা। জেলা হাসপাতালের সুপার ডাঃ নিখিল চন্দ্র দাস ও প্যাথোলজি ইনচার্জ চিকিৎসক ডাঃ রুপক চট্টোপাধ্যায় তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন৷

জানা গেছে, বর্ধমানের বাসিন্দা বৃন্দাবন মন্ডল আসানসোলের মহিশীলা কলোনির একটি বহুতলে থাকতেন। তার বাড়িতে মা, ছাড়াও স্ত্রী ও ছেলে আছে। গত ১২ বছর ধরে তিনি জেলা হাসপাতালে কাজ করছেন। তিন বছর আগে তিনি স্থায়ী হন। করোনার প্রকোপের একবারে শুরু থেকে বলতে গেলে তিনি প্যাথোলজির অন্যকর্মীদের সঙ্গে কয়েক হাজার মানুষের লালারস বা সোয়াব পরীক্ষার জন্য নিয়েছিলেন। লকডাউনের মধ্যেই স্বাস্থ্য কর্মীদের জেলা হাসপাতাল থেকে অন্য জায়গায় কোনও রকম প্রোটেকশন ছাড়াই লালারস নিতে পাঠানোর প্রতিবাদ করে তার নেতৃত্বে একটা আন্দোলনও হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ১০ দিন আগে তাকে করোনা ভাইরাস গ্রাস করে। ছেলের জন্মদিনে বর্ধমানে যাওয়ার আগে সে নিজেই জেলা হাসপাতালের ট্রুনেট মেশিনে লালারসের পরীক্ষা করায়। তখন ধরা পড়ে যে, সে করোনায় আক্রান্ত। রিপোর্ট পজিটিভ আসায় তাকে ১০ দিন আগে দূর্গাপুরের কোভিড ১৯ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু সেখানে চিকিৎসায় তার শরীর ভালো হয়নি।

আরও পড়ুন:সুশান্ত কাণ্ডে নয়া মোড়, স্বজনপোষণে লিপ্তদের ছবি বয়কটের ঘোষণা রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ের

গত ৩ জুলাই তাকে দূর্গাপুর থেকে কলকাতায় মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করা। কিন্তু হাইসুগার থাকায় করোনা চিকিৎসায় সে সাড়া দিচ্ছিলেন না।

সোমবার সকালে তাকে ভেন্টিলেশান সাপোর্ট দেওয়া হয়। রাত বারোটার পরে তার মাল্টি অরগ্যান ফেলিওর হলে, চিকিৎসকরা তার বাঁচার আশা ছেড়ে দেন। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার ভোর রাত তিনটের সময় তার মৃত্যু হয়। সেই খবর আসানসোলে আসে। বিভিন্ন সময়ে তিনি আসানসোলের বিভিন্ন জায়গায় রক্তদান শিবিরের গেছিলেন। তার মৃত্যুতে রক্তদানের সঙ্গে যুক্ত অনেকটা শোক প্রকাশ করেছেন।

এদিকে, হাসপাতালের কর্মীর মৃত্যুতে হাসপাতালে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলা হয়েছে। প্যাথোলজি বিভাগের কর্মীদের আগেই লালারস পরীক্ষা করা হয়েছে।
এই নিয়ে, করোনা আক্রান্ত হয়ে এই পশ্চিম বর্ধমান জেলায় ৬ জনের মৃত্যু হল। যার মধ্যে আসানসোলেরই তিনজন বলে জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গেছে।

Related Articles

Back to top button
Close