fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আত্মহত্যাই করেছেন দেবেন্দ্রনাথ রায়, দাবি ময়নাতদন্ত রিপোর্টে

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রাইয়ের রহস্যমৃত্যুতে উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি।তার মধ্যেই আজ মঙ্গলবার প্রকাশ্যে এল ময়নাতদন্তের রিপোর্ট।আত্মহত্যাই করেছেন হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে সে কথাই বলা হল। মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসে জেলা প্রশাসনের। যে রিপোর্টে স্পষ্টভাবেই বলা হয়েছে, দেবেন্দ্রনাথের শরীরে কোনও আঘাতের চিহ্ন নেই। তাঁর মাথায় কোনও আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। সোমবার সকালে বাড়ির থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে একটি চায়ের দোকানের বারান্দায় ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় দেবেন্দ্রনাথবাবুর দেহ। রবিবার রাত থেকেই নিখোঁজ ছিলেন তিনি। বিধায়কের মৃত্যু নিয়ে স্বাভাবিক ভাবে শুরু হয় চাপানউতোর।যদিও ময়নাতদন্তের এই রিপোর্টকে মানতে নারাজ বিজেপি। মঙ্গলবার এই রিপোর্টকে সাজানো আখ্যা দিয়ে বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে একটি স্মারকলিপি জমা দেন ।

বিজেপি দাবি করে, তৃণমূলের গুন্ডাদের হাতেই নিহত হয়েছেন দেবেন্দ্রনাথ রায় । দলের তরফে আরও দাবি করা হয়, মৃত বিধায়ককে হত্যা করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। যদিও জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল প্রথম থেকেই পাল্টা দাবি করে আসছিলেন, এটি আত্মহত্যাই। একইসঙ্গে এই আত্মহত্যার জন্য পারিবারিক এবং ব্যক্তিগত কারণকেই সামনে এনেছিলেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি। বাম, বিজেপি, তৃণমূল সব পক্ষই তদন্তের দাবি করে। তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় সিআইডি-কে।

আরও পড়ুন: করোনার থাবা ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোয়, টানেল ইনচার্জ-সহ ৩০কর্মী আক্রান্ত, বন্ধ কাজ

এদিকে, পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী মঙ্গলবারই এ নিয়ে রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হয়েছে কৈলাস বিজয়বর্গীয়র নেতৃত্বে বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। আগে থেকে আবেদন করা হয়েছিল। আবেদন মেনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সকাল সাড়ে ১০টায় তাঁদের সময় দেন। সূত্রের খবর, এদিন সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ রাষ্ট্রপতি ভবনে যান তাঁরা। গোটা বিষয়টি জানিয়ে সিবিআই তদন্তের আরজি করা হয়। এ রাজ্যে বিরোধী জনপ্রতিনিধিদের কীভাবে রাজনৈতিক হিংসার শিকার হতে হচ্ছে, তা নিয়েও রাষ্ট্রপতির কাছে বক্তব্য পেশ করেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়রা।

 

Related Articles

Back to top button
Close