fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভাঙন… একের পর এক গঙ্গা বক্ষে তলিয়ে যাচ্ছে বাড়ি, আতঙ্ক

মিল্টন পাল,মালদা: চোখের সামনেই গঙ্গা গর্ভে একের পর এক তলিয়ে যাচ্ছে আস্ত বাড়ি, জমি। দিশেহারা মানুষ। আতঙ্কে ঘর ছাড়ছে তারা। ভাঙনের কবলে মালদার কালিয়াচক তিন নম্বর ব্লকের বৈষ্ণবনগরের চিনা বাজার। যার জেরে ইতিমধ্যে প্রায় তিনশো বিঘার ওপরে জমি গঙ্গা ভাঙনে তলিয়ে গিয়েছে। এদিনও প্রায় তিরিশ মিটারের বেশি জায়গা জুড়ে ভাঙন হয়েছে। তলিয়ে গিয়েছে বেশ কিছু বাড়ি। ভাঙন আতঙ্কে বীরনগর এলাকার বাসিন্দারা।

এদিন সকাল থেকেই চিনা বাজার ও বালুগ্রাম এলাকায় গঙ্গা নদীতে ব্যাপক ভাঙন দেখা যায়। প্রায় ৭০ টির বেশি বাড়ি গঙ্গাবক্ষে তলিয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে আতঙ্কে এলাকাবাসী অন্য জায়গায় ও আমবাগানে আশ্রয় নিচ্ছে।
তাদের অভিযোগ এই পরিস্থিতিতেও জেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা কেউই তাদের কোনও খোঁজখবর নেয়নি। এমনকি এলাকা থেকে কিছুটা দূরত্বে সরকারি অনুষ্ঠানে মালদা জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌড় চন্দ্র মন্ডল জেলাশাসক যোগ দিলেও সমস্ত খবর পেয়ে গ্রামে আসার প্রয়োজন বোধ করেনি।

আরও পড়ুন:হোয়াইট হাউসে ‘চিঠি বিষ’ কাণ্ডের শিরোনামে কানাডার সেইন্ট হিউবার্ট শহর, ধৃত মহিলা

জেলাশাসক রাজশ্রী মিত্র বলেন,ওই এলাকার কাজ ফারাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ করে। তাদের সাথে আমরা যোগাযোগ রাখছি।
বিজেপির মালদা জেলার সহ-সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন,দিনের পর দিন ধরে এই এলাকায় ভাঙানো হচ্ছে কিন্তু ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষকে পূনর্বাসনের কোন ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। কয়েকশো মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিন্তু সামান্য কিছু মানুষকে নতুন করে পাট্টা বিলি করে হাত-পা ঝেড়ে ফেলতে চাইছে জেলা প্রশাসন।

মালদা জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌর চন্দ্র মন্ডল বলেন,ফারাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে আমরা ৬৪টি পরিবারকে নতুন করে সরকারি খাস জমিতে পাট্টা দিয়েছি।

Related Articles

Back to top button
Close