fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

উন্নয়নের জন্য অর্থ বরাদ্দ সহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে  মহকুমা শাসকের দফতর চত্বরে বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন 

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: রাজ্য বাজেট থেকে প্রতিবছর প্রতিটি জেলার কলোনি উন্নয়নের জন্য অর্থ বরাদ্দের দাবি সহ  বিভিন্ন দাবি নিয়ে  মহকুমা শাসকের দফতর চত্বরে বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন দিল সম্মিলিত কেন্দ্রীয় বাস্তুহারা পরিষদ দিনহাটা মহকুমা কমিটি। সংগঠনের পক্ষ থেকে বুধবার এই বিক্ষোভকে ঘিরে ব্যাপক আলোড়ন ছড়িয়ে পড়ে।

উদ্বাস্তু পুনর্বাসন সহ জাতীয় সমস্যা সমাধানে সামগ্রিক দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারকে নিতে হবে এই দাবিতেও বিক্ষোভ দেখায় আন্দোলনকারীরা। সংগঠনের পক্ষ থেকে এদিন দিনহাটা শহরের স্টেশন চৌপতি থেকে একটি মিছিল বের হয় এবং দিনহাটার বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করার পর মহকুমা শাসকের দফতরে এসে উপস্থিত হয়।

এ দিনের মিছিলে নেতৃত্ব দেন মহকুমা কমিটির সম্পাদক গৌরাঙ্গ পাইন। উপস্থিত ছিলেন কান্তি বিশ্বাস, জেলা কমিটির সদস্য অভিনব রায়, মিজানুর রহমান সহ অন্যান্যরা। সংগঠনের পক্ষ থেকে এদিন বিক্ষোভ চলাকালীন সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে উদ্বাস্তুদের নানা সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়। তাঁদের সমস্যা সমাধানে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকার উভয়কে এগিয়ে আসার জন্য দাবি জানান তাঁরা। বিক্ষোভ চলাকালীন এক প্রতিনিধি দল মহকুমা শাসকের সাথে দেখা করে তার হাতে ৭ দফা দাবি পত্র তুলে দেন।

[আরও পড়ুন- কাটোয়ায় বিজেপির সাংবাদিক সম্মেলন]

দাবি পত্রে উল্লেখ করা হয় দিনহাটা মহকুমায় ২০টি উদ্বাস্তু কলোনির রয়েছে যার পাঁচটি কলোনির পাট্টা হয়েছে বাকি ১৫টি কলোনির পাট্টা এখনও হয়নি। যার ফলে সেখানকার বাসিন্দারা সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এবং তাদের জমি হস্তান্তর হয়ে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ।

মহুকুমা কমিটির সম্পাদক গৌরাঙ্গ পাইন বলেন, এইসব কলোনির জমির মালিকরা যাতে খুব দ্রুত জমির দলিল হাতে পায় সেই ব্যবস্থা করার জন্য মহকুমার শাসককে আবেদন জানান এছাড়াও উদ্বাস্তু কলোনির বেশ কিছু জায়গায় নদীর ভাঙ্গন শুরু হয়েছে সেইসব রোধ করার অনুরোধ করলাম। দ্রুত  এই সমস্ত সমস্যার সমাধান  না হলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হব। মহকুমা শাসক শেখ আনসার আহমেদ বলেন, বিভিন্ন দাবি পত্র পেয়েছি। সেগুলির খতিয়ে দেখা হবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close