fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বাঁকুড়ায় যুব মোর্চার পথ অবরোধ ও টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ

নিজস্ব সংবাদাতা, বাঁকুড়া: গণতন্ত্র ফেরানো, বেকারদের কর্মসংস্থান সহ সাতদফা দাবি নিয়ে বৃহস্পতিবার বিজেপির নবান্ন অভিযান কে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্রে চেহারা নিয়েছিল হাওড়া কলকাতা। জায়গায় জায়গায় যুব মোর্চা কর্মীদের থামানোর জন্য পুলিশ অতি সক্রিয় হয়ে লাঠিচার্জ,কাঁদানে গ্যাস সমেত বিশেষ ধরনের কেমিক্যাল মেশানো রঙিন জলকামান ব্যবহার করে বলে অভিযোগ।

 

এই অভিযানকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বাঁকুড়া জেলার যুব মোর্চার তরফ থেকে মাচানতলা মোড়ে আধঘন্টা ধরে পথ অবরোধ করে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপির যুব মোর্চার কর্মী সমর্থকরা। জেলা যুব মোর্চা তরফ থেকে দাবি করা হয় চার হাজারের অধিক যুব মোর্চার কর্মীরা নবান্ন চলো অভিযান এ অংশগ্রহণ করেছিলেন। এদের প্রত্যেককে পুলিশ নির্মমভাবে লাঠিচার্জ করে, ২০০ জন কর্মী রাসায়নিক জলকামানের ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ে, এরমধ্যে রানিবাঁধ এর যুব সভাপতি পরেশ বাউরী ও হিড়বাঁধ এর যুব সভাপতি ঝন্টু মাঝি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। বহু কর্মীদের শরীরে চুলকানী,বমি ভাব সমেত বিভিন্ন শারীরিক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

এদিকে অগ্নিসংযোগে পথ অবরোধে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বাঁকুড়া যুব মোর্চার জেলা সভাপতি রুদ্র মন্ডল বলেন,”আগুন যদি বলতে হয় সেই আগুন সারা পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী লাগিয়েছেন। একটা বেকার যুবক শিক্ষিত যুবক, তাদের একটা ন্যায্য দাবি তারা এসএসসি পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষকতার চাকরি নিয়ে আসবে। আর সেই দাবি নিয়ে যখন তারা রাস্তায় নেমেছে তখন তাদের পিঠের উপর লাঠি বর্ষণ করা হয়েছে। আর এই পিঠে লাঠির আঘাত, কাঁদানে গ্যাসের শেল আর বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করেছে, বোমা ছুড়েছে। উনি যতই আগুন লাগানোর চেষ্টা করুন, উনি মনে রাখবেন এই পিঠের আঘাত নিয়ে যুব সমাজ আজ সংকল্পবদ্ধ, আগামী ২০২১ শে তারা আপনার পতনকে সুনিশ্চিত করবে এবং তৃণমূল নামক রাজনৈতিক দলকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করবে। আরজে আগুন উনি জ্বালিয়েছেন, সেই আগুন কালিঘাটে গিয়ে পৌঁছবে এবং তার বাড়ি পুড়ে ছারখার হয়ে যাবে।”এছাড়াও সুনিল বাবু আগামী দিনে জেলাজুড়ে আরো বৃহৎ আকারে আন্দোলনে নামবেন বলে জানান।

Related Articles

Back to top button
Close