fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

চাষযোগ্য জমিতে বেআইনিভাবে মাছের ভেড়ি তৈরির অভিযোগে বিক্ষোভ কোলাঘাটে

ভাস্করব্রত পতি, তমলুক : কৃষিজমির বদলে মাছের ঝিল বানানোর বিরুদ্ধে বিস্তর গণ্ডগোল কোলাঘাটে। এখানকার নহলা গ্রামে আজ সকালে দোফসলী চাষযোগ্য জমিতে বেআইনি মাছের ভেড়ি তৈরি করাকে কেন্দ্র করে ঝিল মালিক ও তাঁর পেটুয়া লোকেদের সাথে অনিচ্ছুক কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক গন্ডগোল হয়। কোলাঘাট ব্লক মাছের ঝিল বিরোধী কৃষক সংগ্রাম কমিটির পক্ষ থেকে কোলাঘাট থানায় অভিযোগ জানানো হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উভয়পক্ষকে থানায় যাওয়ার নির্দেশ দেন।

এরপর ভেড়ির মালিক খননকার্যের জন্য আনা জেসিবি মেশিন মাঠ থেকে তুলে নিতে বাধ্য হয় বলে জানান, ওই কমিটির উপদেষ্টা নারায়ণ চন্দ্র নায়ক। তিনি বলেন, এইভাবে জেলা জুড়ে চাষিদের চাষের জমি একশ্রেণীর মুনাফাখোর মানুষ অবৈধভাবে ভেড়ি বানিয়ে এলাকার কৃষিজমি ও পরিবেশের দফারফা করছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কোলাঘাট ব্লকের অন্তর্গত সাগরবাড় গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাধীন নহলা মৌজায় প্রায় ৩০-৩৫ বিঘা জমির উপর তমলুক ব্লক এলাকার এক ঝিল মালিক মাছের ভেড়ি তৈরির প্রস্তুতি নেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে চাষযোগ্য জমিকে নষ্ট করে ঝিল করার প্রতিবাদ জানাতে অনিচ্ছুক কৃষকরা গড়ে তোলে ‘নহলা মাছের ঝিল বিরোধী কৃষক সংগ্রাম কমিটি’।

সেই কমিটির পক্ষ থেকে গত ২৬ শে জুন কোলাঘাট ব্লকের বিডিও, বিএল এন্ড এলআর ও, এডিএ এবং ওসি কে ডেপুটেশন ও স্মারকলিপি দেওয়া হয়। এরপর ঝিল মালিক একদিন জমি জরিপের কাজ শুরু করলে সেদিনও কৃষকেরা বাধা দেয়। আজ সকালে ঝিল খননকার্য শুরু করবার জন্য জেসিবি মেশিন মাঠে নামলে মহিলা সহ কৃষকেরা ঝিলের বিরুদ্ধে গর্জে উঠে।

অনিচ্ছুক কৃষকদের পক্ষে আশীষ ভৌমিক ও মোহন মাইতি জানান, কোনও ভাবেই দোফসলি চাষের জমিতে মাছের ভেড়ি করতে দেওয়া হবে না। ভেড়ি তৈরি হলে একদিকে যেমন চাষের ক্ষতি হবে অন্যদিকে এলাকার জলনিকাশী ভীষনভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে। ঐ মুনাফাখোরদের অভিসন্ধি মেনে নেবেনা এলাকার মানুষ।

Related Articles

Back to top button
Close