fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সোপানের সহযোগিতায় আমফান ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দেউলপোতা গ্রাম্যগোষ্ঠী

ভীষ্মদেব দাশ, খেজুরি (পূর্ব মেদিনীপুর): করোনা, লকডাউনের সময় থেকেই সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন দেউলপোতা গ্রাম্য গোষ্ঠী। গত মার্চ মাস বাসন্তী পুজোর প্রস্তুতি তখন তুঙ্গে। ঠিক তখনই করোনা-লকডাউন ভেস্তে দিল সব পরিকল্পনা। আর চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলো সাধারণ মানুষের অসহায়তার ছবি।

 

খেজুরির অন্যতম অগ্রনী ক্লাব দেউলপোতা গ্রাম্যগোষ্ঠী। গোষ্টী কর্তারা মানুষের পাশে দাঁড়ালেন। সদস্য-সদস্যারা প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার ত্রাণ-সাহায্য দিলেও, প্রয়োজনের তুলনায় যে তা সামান্যই তা বুঝে গাঁটছাড়া বাঁধেন কলকাতার স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা “সোপান” এর সাথে। গত সপ্তাহ থেকে সোপান ও ক্লাব যৌথভাবে খেজুরি-১ ব্লকের জাহানাবাদ,ঘোলাবাড়,কামারদা ,দেউলপোতা,বাঁশগোড়া এলাকার ৩২০জনের হাতে শুধুমাত্র খাদ্য সামগ্রীই নয়, উপরন্তু চুন ও ফটকিরি প্রদান করা হয়। আমফান ঝড়ে গাছপালা পড়ে গিয়ে দূষিত হয়েছে গৃহস্থ পুকুরের জল। মরছে মাছও। তাই পুকুরে জল পরিষ্কার করতেও উদ্যোগী হলেন গ্রাম্য গোষ্ঠী। এলাকার একাধিক পুকুর সংস্কার ও পানীয় জল জেনারেটর দিয়ে তোলার জন্য আর্থিক সাহায্যও করে গ্রাম্য গোষ্টী।

 

 

ক্লাবের সম্পাদক তনুজ বেরা জানান,” সুদিনে মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে টাকা নেওয়ার নামই ক্লাব নয়,  দুর্দিনে মানুষের পাশে থাকার জন্যই  ক্লাব। সোপান এর কোর কমিটির সদস্য বিশ্বদীপ চ্যাটার্জি বলেন, আমফান পরবর্তী ধ্বংসলীলা খেজুরিকে যেভাবে বিধ্বস্ত করেছে, তাতে ক্লাবের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে আমরা পারিনি। পুরো প্রজেক্টের দায়িত্বপ্রাপ্ত ক্লাব সদস্য রত্নদ্বীপ সামন্ত ও তরুনাভ দাস জানান, আমরা শুধু খেজুরি-১ ব্লকেই কাজ করব না। আগামী সপ্তাহ থেকে “সোপান” কে সঙ্গে নিয়ে বাচ্চাদের জন্য দুধ,মহিলাদের জন্য স্যানিটারি ন্যাপকিন ও খাদ্য সামগ্রী নিয়ে খেজুরি-২ ব্লকেও পুরোদমে ঝাঁপাবো।

Related Articles

Back to top button
Close