fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফানের ক্ষতিপূরণ পায়নি, ভেঙে পড়ল বাড়ি, মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই

রাজকুমার আচার্য, নন্দীগ্রাম (পূর্ব মেদিনীপুর): আমফান ঝড় একেবারে নড়বড়ে করে দিয়েছিল মাটির ঘর। আশা ছিল সরকারি সাহায্য পেয়ে মেরামত করে টিকিয়ে রাখবে। মেলেনি কোনও সাহায্য। শনিবার রাতের বৃষ্টিতে সম্পূর্ণ ভেঙে পড়ল মাটির বাড়ি। কোনওরকম প্রাণে বাঁচলেও রইল না আর মাথার গোঁজার ঠাঁই।

নন্দীগ্রাম ২ নম্বর ব্লকের আমদাবাদ ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘটনা। আমদাবাদ গ্রামের ১৫৭ নম্বর বুথের বাসিন্দার মৃত্যুঞ্জয় পাত্রের বাড়ি এভাবেই ভেঙে পড়েছে। ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া মাটির বাড়ির কথা প্রশাসনের কাছে জানিয়েও কোনও সাহায্য পায়নি। সরকারি ঘোষণা অনুসারে ২০হাজার টাকা তো দূরের কথা নূন্যতম একটি ত্রিপলও পায়নি, এমনই অভিযোগ ওই পরিবারের। এই ঘোর বর্ষায় হত দরিদ্র পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই হারিয়ে একেবারেই দিশেহারা।

দিন আনা দিন খাওয়া ৯ জনের পরিবার। ছোট বাচ্চাও আছে। দীর্ঘ লকডাউনের কারণে খাটাখাটনিও প্রায় বন্ধ। একদিকে আর্থিক অনটন অন্যদিকে মাথা গোঁজারও ঠাঁই নেই আর। দিশেহারা পরিবার বলে,” আমফান ঝড়ে এক অংশ ভেঙে পড়েছিল এবং পুরো ঘরে ফাটল ধরেছিল। শনিবার রাত্রি ৮টা নাগাদ বৃষ্টিতে হঠাৎ বাড়ির একাংশ ভেঙে পড়ে। প্রতিবেশী ছুটে আসে। এই ঘরে আর থাকা নিরাপদ হবে না ভাবে প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় ঘরের জিনিসপত্র বের করার প্রস্তুতি নেওয়ার সময় চোখের সামনে বাকি অংশ হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ে। এখন আমরা কীভাবে বেঁচে থাকব তাই ভাবছি। বাড়ি বানানোর কোনও সামর্থ নেই আমাদের। বিডিও-র কাছে আমফানের ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদন করেও আমরা কোনওরকম সাহায্য পাইনি।”

প্রতিবেশী শক্তি মাইতি বলেন,”এদের অসহায় অবস্থা দেখে নিজের বাড়িতে রেখেছি। এরা হত দরিদ্র পরিবার। সরকারি সাহায্য পাওয়া জরুরি। শুধু এদের বাড়ি নয়, গ্রামে এইরকম অনেক বাড়ি আছে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েও ক্ষতিপূরণ পায়নি। অথচ অনেক পাকা শক্তপক্ত বাড়ি এবং ক্ষতিগ্রস্ত না হয়েও আমফান ঝড়ের ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। হাতজড়ো করে অনুরোধ করছি সরকার এদের সাহায্য করুক।”

ওই এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য তথা আমদাবাদ ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান অনিমা ভূঁইয়া বলেন,”মৃত্যুঞ্জয়বাবুর বাড়ি আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল জানি। সেইমতো ওনার বাড়ি সার্ভে করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ত্রিপল দেওয়া হয়েছিল। এখনও সব ক্ষতিগ্রস্তদের টাকা এসে পৌঁছায়নি। প্রথম পর্যায়ে যারা টাকা পেয়েছেন সেই তালিকায় উনি ক্ষতিপূরণ পেলে হয়তো ভাল হতো, তবে দেরি হলেও উনি ক্ষতিপূরণ পাবেন। ক্ষতিপূরণের তালিকায় ওনার নাম আছে।”

Related Articles

Back to top button
Close