fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ভাইপোকে প্রমোট করতে শুভেন্দুকে ছাঁটতে চান দিদি

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: শুভেন্দুকে সরিয়ে ভাইপোর পথ প্রশস্ত করতে চাইছেন দিদি। তোপ দাগলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি আধির রঞ্জন চৌধুরি। রবিবার সাংবাদিক বৈঠক করে শুভেন্দু আধিকারির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে রীতিমত সবাইকে তাক লাগিয়ে দিলেন আধীর। তিনি বলেন, ‘অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘প্রোমোট’ করার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারীকে ‘ছেঁটে’ ফেলতে চাইছেন।’ এর আগেও একাধিকবার শুভেন্দু ও ভাইপোর সংঘাত প্রকাশ্যে এসেছে কিন্তু কখন ও আধির চৌধুরিকে তা নিয়ে বলতে শোনা যায় নি। কিন্তু এদিন অধিরের বক্ত্যব্যের পর রাজনৈতিক মহলে জল্পনা ঘনীভূত হয়েছে আরো বেশি করে। কিন্তু তা মানতে নারাজ আধির। এ প্রসঙ্গে এদিন নিজেদের দ্বৈরথের কথা মেনে নিয়ে অধীর চৌধুরী জানান, ‘শুভেন্দু সঙ্গে আমার রাজনৈতিক বিরোধিতা ছিল থাকবে। তা নিয়ে অনেক অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু সত্যিটাকে মানতেই হবে। নন্দীগ্রামে গিয়ে শুভেন্দু কিভাবে আন্দোলন করেছে তা আমি দেখেছি। তা নিয়ে কোন মিথ্যা কথা বলবো না।’
 এক সময় আধিরগড় নামে পরিচিত মুর্শিদাবাদ জেলায় সব থেকে বড় আঘাত হেনেছিল তৃণমূলের শুভেন্দু আধিকারি। তার পর থেকেই সম্পর্কটা একেবারে ‘সাপে নেউলে’ পর্যায় পৌছে গিয়েছিল। কিন্তু হঠাত করে রাজনৈতিক জল্পনা উসকে এদিন শুভেন্দুর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন আধির। তিনি বলেন, ‘বাংলায় তৃণমূলের রাজনৈতিকভাবে শক্তিবৃদ্ধির পিছনে শুভেন্দু অধিকারীর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। নন্দীগ্রামের মানুষের অধিকারী পরিবারের প্রতি আস্থা রয়েছে। রাজনৈতিক পালাবদল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্থানের পিছনে সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রাম একটা বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছিল। আর সেখানে নন্দীগ্রামে সবথেকে বড় ভূমিকা পালন করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী তথা অধিকারী পরিবার। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সেখানে দেখা যায়নি। আমাকে হারানোর জন্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারীকে মুর্শিদাবাদে নিয়োগ করেছিলেন। মুর্শিদাবাদ জেলায় এসে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে তাঁরা কংগ্রেসকে দুর্বল করার চেষ্টা করেছেন। আজ সবাই হাড়ে হাড়ে টের পারছেন যে ‘দিদি’ আসলে কী!’
অন্যদিকে বর্তমান রাজনৈতিক জটিলতার জেরে শুভেন্দু অধিকারীর রাজনৈতিক মতাদর্শ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। রাজনৈতিক মহলে জল্পনা শুরু হয়েছে শুভেন্দু অধিকারী হয়তো পৃথক দল গঠন করতে পারেন, আবার কারও মতে তিনি বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। এই সবকিছুর মধ্যে অধীর বাবু জানান, “শুভেন্দু কোথায় যাবেন আমি জানিনা। কিন্তু উনি যে তৃণমূলের যোগ্য সম্মান পাননি তা স্পষ্ট।” এর পরেই নাম না করে একাধিক উপরমহলের নেতাদের কটাক্ষ করে অধীর বাবু বক্তব্য,” দক্ষিণ কলকাতায় যে সমস্ত মন্ত্রীদের নিয়ে সর্বক্ষণ মুখ্যমন্ত্রী আদিখ্যেতা করেন তেমনটা শুভেন্দু কখনোই পাননি। তাকে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাজ করিয়ে নিয়েছেন। আর কারো সঙ্গে যদি এমন ব্যবহার হয় যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও তাহলে তিনি একদিন অন্য কিছু ভাবতে বাধ্য হবেনই”। এরপরই তাঁকে হুঁশিয়ারির সুরে বলতে শোনা যায়, “বিদ্রোহ তো হবেই। আর সে বিদ্রোহের শিকড়বাকড় বহুদূর যাবে। দিদির পার্টি এই বাংলায় থাকবে না আগামীদিনে।”

Related Articles

Back to top button
Close