fbpx
দেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘আগামী বছর ক্ষমতায় এসে মহালয়ার পুণ্য প্রভাতে তৃণমূলের তর্পণ করব’, মন্তব্য দিলীপ ঘোষের

ইন্দ্রাণী দাশগুপ্ত, নিউ দিল্লি: বাংলায় তৃণমূলের সন্ত্রাসে খুন হয়ে যাওয়া বিজেপি কর্মীদের নামে শপথ করে , আগামী বছর ক্ষমতায় এসে এই মহালয়ার পুণ্য প্রভাতে তৃণমূলের তর্পণ করবো আমরা বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। গত বছরের মতো এবারও বাগবাজার ঘাটে বিজেপির খুন হয়ে যাওয়া শহীদ কর্মীদের উদ্দেশ্যে তর্পনের ব্যবস্থা করেছিল বঙ্গ বিজেপি ।কিন্তু তাতে বাধ সাধে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ ।  অনুমতি নেওয়া হয়নি এই কারণ দেখিয়ে বিজেপি কর্মীদের তর্পণ করতে বাধা দেয় তারা। পরে অত্যন্ত সুকৌশলে বাগবাজারের পার্শ্ববর্তী ঘাটে তপন করেন মৃত বিজেপি কর্মীর পরিবারের লোকজনেরা ।

এই ঘটনায় স্পষ্টতই ক্ষুব্ধ এবং বিরক্ত দিলীপ ঘোষ জানান পশ্চিমবঙ্গ সরকার বিরোধী দলগুলোকে রাজনীতি করতে দেবে না । আর এখন তো দেখছি ওরা আমাদের মৃত শহীদ কর্মীদের আত্মার শান্তির উদ্দেশ্যে তর্পণ টুকু করতে দিচ্ছে না। পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ মানুষের কি তর্পণ করার অধিকার নেই? আসলে তৃণমূল বুঝে গেছে যে ওদের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে যাচ্ছে। ওরা আমাদের আমাদের মিটিং-মিছিলের মঞ্চ ভেঙে দেয় । সকালবেলা আমি চা চক্র করি সেই মঞ্চ ও ভেঙে দিচ্ছে, শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার থেকে । এটা না হয় বোঝা যায় ভয় পেয়ে গিয়ে আমাদের আটকাতে ওরা রাজনীতির নামে পেশী শক্তির প্রয়োগ করছে। কিন্তু গতকালের ঘটনা সারা পশ্চিমবঙ্গের ইতিহাসে আগে কোনদিনও হয়েছে বলে আমার জানা নেই।

আরও পড়ুন: সর্ব খারাপ দলে পরিণত হয়েছে তৃণমূল: জয় ব্যানার্জি

যে বিজেপি কর্মীরা খুন হয়ে যাচ্ছেন তারাতো পশ্চিমবঙ্গের অধিবাসী । সেই মানুষগুলোর অকালে নৃশংস ভাবে মৃত্যু হয়েছে । তাদের আত্মার শান্তির উদ্দেশ্যে তাদের পরিবার-পরিজনের যদি গঙ্গার ঘাটে পিতৃপক্ষের তর্পণ করতে চায় তাহলে সেটা সরকারের চোখে অন্যায় । আমার মাঝে মাঝে মনে হয় এই সরকার নিজেই জানেনা তারা আসলে কি চায়? বিজেপির
ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তাকে আটকানোর জন্য ওরা আরও কি কি অন্যায় অত্যাচার করতে পারে আমাদের তথা অসহায় পশ্চিমবঙ্গবাসীর উপর উপর সেটা দেখছে সারা পশ্চিমবঙ্গ।

Related Articles

Back to top button
Close