fbpx
কলকাতাহেডলাইন

আম্ফানের মোকাবিলায় ‌‌রাজ্যের প্রস্তুতি নিয়ে সংশয়ী দিলীপ

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: ধেয়ে আসছে অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। তাঁর ছোবলে তছনছ হয়ে যেতে পারে রাজ্যের ৭ জেলা। অথচ এই ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় রাজ্য ততো ‘ সিরিয়াস ‘ নয় এমনটাই মনে করছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিজেপির অন্য কেন্দ্রীয় নেতা মুকুল রায় ও বলেছেন বিজেপি প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে সব ধরণের সহযোগিতা করতে রাজি। বিজেপির রাজ্য সভাপতি কেন বলছেন এমন কথা? উত্তরে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ ঘূর্ণিঝড় আম্ফান সৃষ্টির শুরুতেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে জানতে চাওয়া হয়েছিল ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় রাজ্য কতটা তৈরি ১৫ তারিখের মধ্যে দিল্লিকে জানাতে বলা হয়েছিল। কিন্তু রাজ্য সরকার কোন জবাব দেয়নি। এ থেকেই বোঝা যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় নিয়ে রাজ্য কতটা সিরিয়াস ছিল।’

এই প্রসঙ্গেই তিনি বলেন, ‘ বাধ্য হয়েই সোমবার কেন্দ্রীয় বৈঠকে বাংলার রেসিডেন্সিয়াল কমিশনারকে ডাকা হয়। তা নিয়ে অবশ্য দিদির গোঁসা হয়েছে। রাজ্যের জবাবের অপেক্ষায় না থেকে কেন্দ্র ২১ টা বিপর্যয় মোকাবিলা দল ইতিমধ্যেই পাঠিয়েছে বাংলা ও ওড়িশায়। অমিতজি নিজে মুখ্যমন্ত্রীকে ফোন করে সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন।’
তিনি আরও বলেন, ‘ আজ শুনলাম দিদি নবান্নে দাবি করেছেন, ৩ লাখ লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখানেও সংখ্যার গোলমাল। দিদির তো ১ লাখ লোক রাখার জায়গা নেই। কিসের হিসাবে এমন দাবি করেছেন জানিনা।’

আরও পড়ুন: আম্ফানকে কেন্দ্র করে শহরে বিশেষ সর্তকতা, নজরদারি বাড়াল পুরসভা

তিনি বলেন, ‘ দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাজি, কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিএল সন্তোষজির সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স হয়েছে। তাঁরা নির্দেশ দিয়েছেন এই দুর্যোগে মানুষের পাশে থাকতে হবে। সেইমতো আমরা বিজেপি দফতরে কন্ট্রোল রুম খূলছি। হেল্পলাইন নম্বর চালু করা হচ্ছে। নম্বর টি হলো 9727294294. বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা মুকুল রায় বলেন, ‘ রাজ্যের উপর একটা বড়ো বিপদ এসেছে। এখন রাজনীতি করার সময় নয়। দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে দুর্যোগমোকাবিলায় রাজ্য বিজেপি কর্মীরা সবরকম সহযোগিতা করবেন। প্রশাসন সহযোগিতা চাইলে আমরা সহযোগিতা করবো।’

Related Articles

Back to top button
Close