fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আবহে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে খোলামেলা মণ্ডপ তৈরি করছে দিনহাটা গোসানিমারি দুর্গাপুজো কমিটি

জেলা প্রতিনিধি, দিনহাটা: এবছর করোনা আবহে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে খোলামেলা পুজো মণ্ডপ তৈরি করে দর্শনার্থীদের চমক দিতে চাইছে দিনহাটা গোসানিমারি দুর্গাপুজো কমিটি। উল্লেখ্য গত কয়েক বছর ধরে দিনহাটায় বিগ বাজেটের পুজো করে আসছে গোসানিরোড সর্বজনীন দুর্গাপুজো কমিটি। এবছর এই পুজো ৫৩তম বর্ষ হলেও উদ্যোক্তারা জানান। করোনার হাত থেকে মানুষকে রক্ষা করতে মন্দিরে ভিড় যাতে কোনওভাবেই না হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে নানারকম পরিকল্পনা নিয়েছে পুজো উদ্যোক্তারা। মাস্ক বিলি থেকে শুরু করে থাকছে স্যানিটাইজার। এবছর করোনা আবহে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে খোলামেলা পুজো মণ্ডপ তৈরি হচ্ছে। পাশাপাশি এই প্রথম অষ্টমীর সকালে কোনরকম অঞ্জলি দেওয়ার ব্যবস্থা থাকছে না। পুজো দর্শনার্থীরা যাতে খোলামেলা পুজোমণ্ডপে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রতিমা দেখতে পারে তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হচ্ছে। স্থানীয় শিল্পী জয়ন্ত সাহা গত বেশ কিছুদিন ধরেই নাট মন্দিরের আদলে খোলামেলা এই পুজো মণ্ডপ তৈরি করছেন। খোলামেলা মন্ডপ ছাড়াও থাকছে নানা হাতের নানা কারুকার্য।

সরকারি বিধি-নিষেধ মেনে পুজোমণ্ডপে ঢোকার আগে পুজো দর্শনার্থীদের সকলেরই হাত স্যানিটাইজ করার ব্যবস্থা থাকছে।
পুজো কমিটির সম্পাদক সুব্রত মুখোপাধ্যায়, দীপঙ্কর ঘোষ, প্রদীপ সাহা, শুভদেব ভৌমিক সহ অন্যান্যরা বলেন,”গত কয়েক বছর ধরে তারা বিগ বাজেটের পুজো করে আসছেন। তাদের এই পুজো দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করে।এবছরও তারা বিগ বাজেটের পুজোর পরিকল্পনা করলেও করোনা আবহে পুজোর খরচ কাটছাঁট করা হয়। উদ্যোক্তারা বলেন গতবছর বৃদ্ধাশ্রম দর্শকদের বিচারে জেলার অন্যতম সেরা পুজোর সম্মান পায়। বহু মানুষ তাদের এই পুজো মণ্ডপে প্রতিমা দর্শন করেন। পাশাপাশি বৃদ্ধাশ্রম এই থিম দেখতে জেলার এমনকী জেলার বাইরে থেকেও দর্শনার্থীরা আসেন।

আরও পড়ুন:প্রয়াত ভাঙড়ের প্রাক্তন বিধায়ক আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা

এবছর করোনা আবহের মধ্যেও দর্শনার্থীদের যাতে নিরাশ হতে না হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে সরকারি বিধি নিষেধ এবং প্রশাসনের নির্দেশমতো খোলামেলা পুজোমণ্ডপ তৈরি হচ্ছে। প্রতিবছরের মতো এবছরও প্রতিমাতেও থাকছে নতুনত্ব। পুজোর চারদিন ভিড় রোধে পুজো মন্ডপ প্রাঙ্গণে থাকছে অধিক সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক। এছাড়াও অষ্টমীতে অঞ্জলি দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবছর হয়ে থাকে। করোনা আবহে এবছর ভিড় কমাতে অঞ্জলি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়। পুজোর কয়েকদিন পুজো মণ্ডপ প্রাঙ্গন এলাকাতে প্রতিদিন স্যানিটাইজ করার ব্যবস্থাও থাকবে বলে উদ্যোক্তারা জানান।

Related Articles

Back to top button
Close