fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বাংলায় রাজ্য পুলিশকে না জানিয়ে সরাসরি তল্লাশি, এনআইএ পূর্বাঞ্চলীয় কর্তাকে চিঠি ডিজি বীরেন্দ্রর

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: দেশের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা হিসেবে সিবিআই বা ইডির মতো সারা দেশের যে কোনও ঘটনা বা মামলার তদন্তভার হাতে নেওয়ার অধিকার আছে এনআইএ-র। কিন্তু সব ক্ষেত্রেই রাজ্য প্রশাসন বা রাজ্য পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় রেখে কাজ করে এই সংস্থা। কিন্তু ব্যতিক্রম ঘটেছিল শনিবার সকালে।
মুর্শিদাবাদ ডোমকলে এনআইএ-র ‘সিক্রেট মিশন’-এ ৬ জনকে গ্রেফতারের পর বিষয়টি জানতে পারে রাজ্য প্রশাসন। কেন তাদের কিছু না জানিয়ে এভাবে গোপন অপারেশন চালাল এনআইএ গোয়েন্দারা, তার ব্যাখ্যা চেয়ে এনআইএ পূর্বাঞ্চলীয় কর্তাকে চিঠি পাঠালেন ডিজি বীরেন্দ্র।
২০১৪ সালে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পরে এ রাজ্যে সক্রিয় জঙ্গি কার্যকলাপ নজরে আসে। কিন্তু বরাবরই   রাজ্য পুলিশের সঙ্গে সহযোগিতা রেখেই কাজ করেছেন এনআইএ গোয়েন্দারা। রাজ্য পুলিশ প্রাথমিক তদন্ত করলেও পরে সমস্ত তথ্য এনআইএ-র হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও যৌথ অভিযানও চালিয়েছে রাজ্য পুলিশ ও এনআইএ। গণতান্ত্রিক পরিকাঠামোয় তথ্য আদান প্রদানই স্বাভাবিক নিয়ম কেন্দ্র ও রাজ্য পুলিশের।
কিন্তু মুর্শিদাবাদের ঘটনার কোনও খবর ছিল না নবান্ন থেকে রাজ্য পুলিশ এমনকি মুর্শিদাবাদের পুলিশ সুপারের কাছেও।  এই নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণের পাশাপাশি ডিজিকে আক্রমণ করে ট্যুইট করেছেন খোদ রাজ্যপালও। সেই কারণেই ব্যাখ্যা চেয়ে পূর্বাঞ্চলীয় কর্তা কে চিঠি পাঠিয়েছেন রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র বলে সূত্রের খবর। উল্লেখ্য,  ধৃত ৬ জনকে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এনআইএ হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে কলকাতার এনআইএ বিশেষ আদালত।

Related Articles

Back to top button
Close