fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আমফানে ভুয়ো ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের টাকা ফেরত দেওয়া শুরু 

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ মতো আমফানে ভুয়ো ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের টাকা ফেরত দেওয়ার কাজ শুরু হল। দেগঙ্গা বিডিও অফিসে এপর্যন্ত ক্ষতিপূরণ পাওয়া ৬ টি পঞ্চায়েতের ১২ জন বেনিফিশিয়ারি দুইলক্ষ চল্লিশ হাজার টাকা তাদের পঞ্চায়েত প্রধান সহ অন্যান্য পদাধিকারী দের হাতে চেক, ড্রাফট মারফৎ পৌঁছে দিলেন। সেই পদাধিকারিরা বিডিও সুব্রত মল্লিকের হাতে সেই অর্থ তুলে দিলেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন দেগঙ্গা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মফিদুল হক সাহাজী।

আগামী দিনগুলোতে এই টাকা ফেরত নেওয়ার কাজ চলবে।কিন্তু যারা এই ভাবে গরিব ক্ষতিগ্রস্তদের টাকা আত্মসাৎ করেছিল তারা কেন এলোনা বিডিও অফিসে? কি করেই বা সরকারি টাকা তাদের হাতে গেল? প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত যারা তাদের হাতে কেন গেল না? আমফান ঝড় কেটে গেলো প্রায় ৪০ দিন যেসব মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তাদের নাম কেন লিস্টে উঠলোনা? আর যারা সার্ভে করেছিল তারা কারা ? তারা যদি জনপ্রতিনিধি হয়ে থাকে, তাহলে এখন কিভাবে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষকে খুঁজে পাবে। কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে বারবার বলতে শোনা যাচ্ছে আমানের টাকা তসরুপ হলে কাউকে রেহাত করা হবে না। তারপরেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন।

এদিকে দেগঙ্গা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মফিদুল হকের বক্তব্য, ইলেকট্রিক না থাকার জন্য টাকাটা তছরুপ হয়েছে। একজন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তিনি বলছেন ইলেকট্রিক না থাকার জন্য সঠিক মানুষকে খুঁজে পাননি। তাহলে যেসব ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ রা বিডিও অফিসে জানতে এসেছিল তাদের নাম কেন লিস্টে নেই, তার পর তাদের কপালে কিকরে জুটলো জেল। আর যেসব মহান ব্যক্তিরা এই ভুল কাজ করেছে এবং এই নিরীহ মানুষদের ভুল পথে পরিচালনা করেছে তাদের কি সাজা হবে। আর বেনিফিসারী যারা, তারা টাকা ফেরত দিলো তাদের জন্য কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close