fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জলের তোড়ে ভেঙে যাওয়া রক্তি নদীর পাড় ও সেতু পরিদর্শন করে দ্রুত সমস্যা সমাধানের আশ্বাস জেলা শাসকের

কৃষ্ণা দাস, শিলিগুড়ি: পাহাড় সহ সমতলে টানা বৃষ্টির জেড়ে শিলিগুড়ি মহকুমার মাটিগাড়া ব্লকের পাথরঘাটার অন্তর্গত রক্তি নদীর জল ফুলে ফেপে ওঠায় নদী সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়ে। জলের তোড়ে  রক্তি নদীর সেতুটিও ভেঙে গিয়েছে। পাশাপাশি রক্তি নদীর পাড় ভেঙে গিয়ে একটি আস্ত পাকা বাড়িও হেলে পড়েছে। বৃহস্পতিবার দার্জিলিং জেলার জেলা শাসক এস পুনমবলম রক্তি নদী সংলগ্ন এলাকা ও সেতুটি পরিদর্শনে যান।  এদিন তার সাথে ছিলেন সেচ দপ্তরের আধিকারিকরা সহ জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি রঞ্জন সরকার সহ জেলার তৃণমূল নেতৃত্বরা।
জেলা শাসক এস পুনমবলম জানান, অন্যান্য বছরের চাইতে এ বছর উত্তরবঙ্গ সহ দার্জিলিং জেলায় অনেক বেশি বৃষ্টি হয়েছে। পাহাড় ও সমতলের লাগাতার বৃষ্টির জন্য উত্তরবঙ্গের নদী সংলগ্ন এলাকাগুলি প্লাবিত হয়ে পড়ে। বহু নদীর পাড় ভেঙে গিয়েছে। মাটিগাড়া ব্লকের রক্তি নদীর পাড় ভেঙে গিয়ে রক্তি সেতুটিও ভেঙে গিয়েছে। সেচ দপ্তর থেকে ইতিমধ্যেই কিছু কিছু জায়গা  অস্থায়ীভাবে ঠিক করে দেওয়া হচ্ছে।
বড় বড় কাজের ক্ষেত্রে ডিপিআর তৈরী করে প্রকৃয়ার মধ্যে আছে। অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। অনুমোদন চলে এলেই কাজ শুরু করা হবে। তবে সেতুটিকেও ঠিকঠাক করার জন্য ডিপিআর তৈরী করে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। অনুমোদন আসার পর কাজে হাত দেওয়া হবে। তবে এই সেতু ঠিক করে দিলেও সেতুর ওপর দিয়ে সাইকেল কিংবা দু চাকার গাড়ি ছাড়া কোনো ভারি যানবাহন চলাচল করতে পারবে না বলে জানান জেলাশাসক। পরবর্তীতে বসে আলোচান করে কি করণিয় তা করা হবে।
সেই সঙ্গে নদীর পাড় ভাঙার ফলে দোতলা যে পাকা বাড়িটি ভেঙে গিয়েছে সেই বাড়িটির ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে জেলা শাসক বলেন, “বাড়িটি দেখেছি সেচ দপ্তরের আধিকারিকরা সব দিক খতিয়ে দেখার পর যা করণিয় করা হবে। তবে আপাতত জরুরী কালীন ভিত্তিতে যে সমস্ত কাজ করা প্রয়োজন তা দ্রুত করা হবে। “

Related Articles

Back to top button
Close