fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

প্লাবিত গীতালদহের দুই গ্রামের মানুষের পাশে দাঁড়ালেন চিকিৎসক অজয় মণ্ডল

জেলা প্রতিনিধি, দিনহাটা: একটানা বৃষ্টি ও নদীর জল বেড়ে প্লাবিত হয়ে পড়া ওই দুই গ্রামের বেশ কিছু অসহায় মানুষের হাতে শুকনো খাবার তুলে দিলেন চিকিৎসক অজয় মণ্ডল। দিনহাটা এক ব্লকের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের গীতালদহের ওই দুই গ্রাম ধরলা নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন হাওয়াই গীতালদহ বাজারের সঙ্গে যোগাযোগের অন্যতম ভরসা নৌকা কিংবা বিএসএফের স্পিডবোর্ড। পাশাপাশি বিএসএফের কড়া প্রহরার ফলে ইচ্ছে করলেই যাতায়াতের কোনও উপায় থাকে না।

প্রতিবছর বন্যায় প্লাবিত হয়ে পড়ে গ্রাম দুটি। ক্ষতি হয় ফসলের। এবছরও এক দিকে বৃষ্টি পাশাপাশি নদীর জল বেড়ে যাওয়ায় দুই গ্রামের অধিকাংশ এলাকায় জলমগ্ন হয়ে পড়ে। সেখানকার পাঁচ শতাধিক মানুষের হাতে শুকনো খাবার তুলে দিচ্ছেন চিকিৎসক ও তার সহযোগীরা।

বিএসএফের সহযোগিতায় এদিন ওই গ্রামে গিয়ে জলমগ্ন এলাকার বাসিন্দাদের শুকনো খাবার হিসাবে চিড়া, মুড়ি, বিস্কুট প্রভৃতি তুলে দেন তারা। এদিন চিকিৎসক ওই গ্রামে গিয়ে অসহায় মানুষের হাতে শুকনো খাবার তুলে দেওয়ার সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন গীতালদহ ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান মনসুর আলি মিঁয়া, সংশ্লিষ্ট এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য সাদ্দাম হক, চিকিৎসকের সহযোগীদের পার্থ চক্রবর্তী, আজিজুল হক, অর্ঘ্য কমল সরকার, মনোজ দে প্রমুখ। বিএসএফের সহযোগিতায় এদিন চিকিৎসক ও তার সহযোগীরা ওই দুই গ্রামে গেলে গীতালদহ বিকাশ সমিতির মইনুল হক, প্রমিলা বাহিনী সাজিদা পারভীন প্রমূখ পাশে থেকে নানাভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

আরও পড়ুন:দেশে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৩৩ হাজারের কাছাকাছি

গীতালদহ দুই গ্রাম পঞ্চায়েত উপপ্রধান মনসুর আলি মিঁঞা, গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য সাদ্দাম হক প্রমুখরা প্রত্যন্ত গ্রামে চিকিৎসক খাদ্য সামগ্রী নিয়ে গেলে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান বলেন, প্রতিবছর বন্যায় এলাকার মানুষের প্রচুর কষ্টের মধ্যে কাটাতে হয়। এই অবস্থায় চিকিৎসক যেভাবে গ্রামের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তা ভোলার নয়।

চিকিৎসক অজয় মণ্ডল জানিয়েছেন, দিন কয়েক আগে ওই দুই গ্রামের বেশ কিছু এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। সমস্যায় পড়তে হয় এলাকার বাসিন্দাদের। এদিন তিনি তাদের সহযোগীদের নিয়ে সেখানে গিয়ে বেশ কিছু পরিবারের হাতে শুকনো খাবার তুলে দিতে পেরে খুশি।

Related Articles

Back to top button
Close