fbpx
অফবিটকলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রাস্তায় পড়ে থাকা কুকুর, বিড়ালকে স্নেহের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ‘পজিটিভ লাভার্স’

বিপাশা চক্রবর্ত্তী, কলকাতা: সম্প্রতি কেরলের মাল্লাপুরম ও কোল্লামে বাজিভর্তি আনারস খাইয়ে দুই হাতির মৃত্যুর ঘটনায় নিন্দা থেকে প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল সমগ্র দেশ। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই হিমাচলে গরুকে বাজি ভর্তি ফল খাওয়ানোর ঘটনা সামনে আসে। এছাড়াও সমাজে পশুদের ওপর অত্যাচার কখনও তাদের গায়ে বাজি ছুঁড়ে মারা, গায়ে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া এসব ঘটনা হামেশাই সামনে আসে। কিন্তু এর মধ্যেও কিছু মানুষ আছেন যারা পরম মমতায় তাদের কাছে টেনে নিয়েছেন। অবলা জীবগুলির না বলা কথাগুলিকে নিজের কষ্ট বলে মনে করেছেন। তার মধ্যেই অন্যতম একটি নাম ‘পজিটিভ লাভার্স’। যার কর্ণধার অনন্যা ঘোষ।

পজিটিভ লাভার্স-এর কর্ণধার অনন্যা ঘোষ

যাঁর প্রচেষ্টায় বাকি সদস্যরা রাস্তার কুকুর, বিড়াল থেকে শুরু করে বন্য পশুদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। গ্রুপের বাকি সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন অমিত দাশগুপ্ত, অমিতাভ দাশগুপ্ত, মনোজ গায়েন, দ্বীপরাজ দত্ত, বরুণ সাহু, ঈশিতা চক্রবর্তী, রাজ চক্রবর্তী প্রমুখ।

অনন্যাদেবী জানিয়েছেন, ‘পজিটিভ লাভার্স’ একটি অ্যানিম্যাল ওয়েলফেয়ার গ্রুপ। সন্তোষপুরের মহেশতলায় এই গ্রুপটি গড়ে উঠেছে। রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো কুকুর, বিড়াল ও বন্য পশুদের নিয়ে কাজ করে থাকি আমরা। এদের উদ্ধার করা, চিকিৎসা, স্টেরিলাইজেশন এই কাজগুলো হয়ে থাকে গ্রুপের মাধ্যমে। পাশাপাশি যাতে দুর্ঘটনার হাত থেকে এইসব অবলা জীবগুলোকে বাঁচানো যায় তার জন্য রেডিয়াম কলারের উপরেও আমরা কাজ করে থাকি।

অনন্যাদেবী আরও জানান, বিগত মার্চ মাস থেকে গোটা বিশ্ব এক কঠিন অসুখে ভুগছে। যার নাম কোভিড-19। লকডাউন চলার কারণে বন্ধ ছিল হোটেল, রেস্তোরাঁ। ডাস্টবিনে পড়ে থাকা খাবার থেকেও বঞ্চিত হচ্ছিল রাস্তায় যত্রতত্র ঘুরে বেড়ানো কুকুর, বিড়ালগুলি। এখন পরিস্থিতি আগের চেয়ে ভালো হলেও স্বাভাবিক হয়নি। তাই এদের অবস্থার কথা ভেবে ‘পজিটিভ লাভার্স-এর সদস্যরা লকডাউনের প্রথম দিন থেকে এই অবলা জীবগুলির মুখে খাওয়ার তুলে দেওয়ার কাজ করে চলেছেন। আমাদের এই প্রচেষ্টা আগামীদিনেও চলবে।

এই উদ্যোগে নিজেদের ইচ্ছেতেই অনেক মানুষ শামিল হয়েছেন। আগামীদিনেও আরও অনেক মানুষ এইভাবে পাশে দাঁড়াবেন সেই আশাই রাখব। এছাড়াও গ্রুপের সকল সদস্যরা দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন।

Related Articles

Back to top button
Close